প্রচ্ছদ / বিনোদন / বিস্তারিত

ইমরুল নুর

বিনোদন প্রতিবেদক

২০ বছরে আম্মাজান, মনে পড়ে সেই মান্নাকে?

   
প্রকাশিত: ৪:১০ অপরাহ্ণ, ২৫ জুন ২০১৯

ছবি: সংগৃহীত

‘আম্মাজান ও আম্মাজান’ গানটি নব্বই দশকের শেষের দিক থেকে এখনও পথে প্রান্তরে মানুষের মুখে মুখে ঘুরে ফেরে। দেশের কালজয়ী সিনেমার মধ্যে ‘আম্মাজান’ ছবিটি ছিল উল্লেখযোগ্য। এখনও লাখো মানুষের মনে গেঁথে আছে এই ছবিটি ও ছবির গান। ছবিটিতে ছেলের চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকের ভালোবাসায় ভেসেছিলেন চিত্রনায়ক মান্না।

সময়টা যেন কিভাবে কেটে যায়। দেখতে দেখতেই পার হয়ে গেল ২০টি বছর। ১৯৯৯ সালের আজকের এই দিনে (২৫ জুন) মুক্তি পেয়েছিল ‘আম্মাজান’ ছবিটি। সপ্তাহের পর সপ্তাহ চলেছিল সিনেমা হলে। সেসময়ে ছবিটি তুমুল ব্যবসা করেছিল, হয়েছিল ব্লকবাস্টার হিট। এই ছবিতে ‘আম্মাজান’ চরিত্রে অভিনয় করেছেন কিংবদন্তি অভিনেত্রী শবনম। মা ভক্ত ছেলের ভূমিকায় ছিলেন মান্না।

এই ছবিটির জন্য ২৪তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকার বিভাগে পুরস্কার লাভ করেন কাজী হায়াৎ। কাজী হায়াতের চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় ‘আম্মাজান’ ছবিটির প্রযোজনা করেছেন ও কাহিনী লিখেছেন মনোয়ার হোসেন ডিপজল। ছবিটিতে শবনম ও মান্না ছাড়াও আরও অভিনয় করেছেন মৌসুমী, আমিন খান, ডিপজল, মিজু আহমেদ প্রমুখ।

ব্লকবাস্টার এ ছবিটি তখনকার ইন্ডাস্ট্রিতে অনেক প্রভাব ফেলেছিল। বিশেষ করে নায়ক মান্নার একটা প্রভাব নতুন করে ইন্ডাস্ট্রিতে শুরু হয়েছিল। এই ছবির পর থেকে আলোচনায় চলে আসেন নায়ক মান্না।

এই ছবিটি নির্মাণের আগে কাস্টিং নিয়ে কিছুটা জটিলতাও তৈরি হয়েছিল। সেসময় টাতে প্রযোজক ডিপজলের সাথে তখন মান্নার একটা বিরোধ চলছিল। সেজন্য ডিপজল ছবিতে রুবেলকে নিতে চেয়েছিল। কিন্তু পরিচালক কাজী হায়াৎ সাফ বলে দেন, মান্না ছাড়া তিনি এ ছবি করবেন না। কারণ, তার বিশ্বাস ছিল মান্না ছাড়া চরিত্রটি আর কেউ ফুটিয়ে তুলতে পারবে না। সেদিনই মান্না ও ডিপজলের সাথে দেখা করে কথা বলে। ডিপজল পরিচালককে জানিয়ে দেয় মান্না-ই চূড়ান্ত।

সেসময়ে ছবিটি দশ কোটিরও বেশি টাকা ব্যবসা করেছিল। ছবিতে গান ছিল পাঁচটি। সবগুলো গানের কথা, সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছিলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। আইয়ুব বাচ্চুর কণ্ঠে ‘আম্মাজান’ গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা লাভ করে। এছাড়াও আইয়ুব বাচ্চু ও শাকিলা জাফরের কণ্ঠে ‘তোমার আমার প্রেম’ গানটি বেশ শ্রোতাপ্রিয় হয়।

টিএএফ/এসইসি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: