প্রচ্ছদ / ক্যাম্পাস / বিস্তারিত

মেস ভাড়ার জন্য ছাত্রীদের বাইরে দাঁড় করিয়ে রাখলেন মালিক!

   
প্রকাশিত: ৮:০৭ পূর্বাহ্ণ, ৮ জুন ২০২০

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন ছাত্রীকে পাঁচ মাসের মেস ভাড়ার জন্য অপমান ও বাইরে দাঁড় করিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে মকবুল মেসের মালিক মবিন আহমদের বিরুদ্ধে। শনিবার (৬ জুন) দুপুর ১২টার দিকে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংলগ্ন চকবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মেসে থাকা বই ও ল্যাপটপ আনতে গেলে মেস মালিক আহমদ ও তার স্ত্রী শিল্পী বেগম ছাত্রীদের কাছে মার্চ থেকে জুলাই এ পাঁচ মাসের ভাড়া দাবি করেন এবং ৫ মাসের মেস ভাড়া না দেওয়া পর্যন্ত কাউকে মেসে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন। এ সময় ছাত্রীরা দুপুর ১২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন।

ভুক্তভোগী ছাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, করোনার কারণে গত মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে তারা বাড়িতে থাকছেন। চলমান পরিস্থিতিতে আর্থিক সংকটের কারণে তারাসহ অনেক ছাত্রীই মেস ভাড়া দিতে পারছেন না। লকডাউন উঠে যাওয়ায় জরুরি বই ও ল্যাপটপ আনতে তারা গতকাল দুপুরের দিকে মেসে যান।

এ সময় মেস মালিক ও তার স্ত্রী গেটে তালা লাগিয়ে দেন এবং একসাথে ৫ মাসের ভাড়া না দেওয়া পর্যন্ত কাউকে ভেতরে প্রবেশ করতে এবং ভেতর থেকে কিছু নিতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেন। এ সময় ছাত্রীরা কেবল বই ও ল্যাপটপ নিয়ে চলে যাবেন জানিয়ে অনুরোধ করলেও মেস মালিক ও তার স্ত্রী তাতে কর্ণপাত করেননি।

ঘটনাটি জানাজানি হলে ঐ মেসের একাধিক ছাত্রী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেন, মেস মালিক সবসময় খারাপ আচরণ করেন। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ও নানা অজুহাতে জরিমানা করেন। তাছাড়া মেসে উঠার সময় জামানতের নামে একটা রসিদ দিয়ে চার হাজার টাকা নেওয়া হয়, কিন্তু মেসের সিট বাতিল করার সময় কেউ যদি সে রসিদ দেখাতে না পারেন তাহলে মালিক সে টাকা ফেরত দেন না।

মকবুল ছাত্রী নিবাসের মালিক মুবিনে আহমদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মেস মালিক সমিতির মিটিং থেকে মেস ভাড়া মওকুফ না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অনেক টাকা খরচ করে মেস বানিয়েছি। তাই মেস ভাড়া মওকুফ করা সম্ভব নয়। এ সময় ছাত্রীদের অপমান করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনারা মেসে থাকবেন অথচ ভাড়া দিবেন না এটাতো হতে পারে না।

প্রক্টর আতিউর রহমান জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ইতিমধ্যে শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়া মওকুফে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশন, জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ কমিশনার বরাবর চিঠি পাঠিয়েছে। মেস মালিকের বিরুদ্ধে ছাত্রীরা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ছাত্রীরা অভিযোগ করলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কাওসার/নিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: