প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

‘আপনারা আমারই লোক, বৌ-শাশুড়ির খবরটা প্রকাশ করবেন না’

   
প্রকাশিত: ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ, ২ ডিসেম্বর ২০২০

ছবি: সংগৃহীত

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে উপ-নির্বাচনে ইউপি সদস্য প্রার্থীকে ভোট না দেওয়ার সন্দেহের জেরে শাশুড়ি-পুত্রবধূ ও নাতিকে পাশবিক নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ইউপি সদস্য প্রার্থী ও তার সহযোগীরা বাড়িতে ঢুকে এ পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে বলে ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ। কোনও ব্যবস্থা না নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার তাগিদ থানার ওসির। আতঙ্কে রয়েছে ভুক্তভোগী পরিবার।

আহতরা হলেন-কালিয়াকৈর উপজেলার জালশুকা এলাকার মৃত আব্দুল মজিদের স্ত্রী নুর-জাহান বেগম (৬০), তার পুত্রবধূ সোনিয়া আক্তার (২৩) ও ছয় বছরের নাতি ছোয়াত খান।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গেলো ২০ অক্টোবর কালিয়াকৈর উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে ইউপি সদস্য প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ টিউবয়েল মার্কা নিয়ে পরাজয় বরণ করেন। এরপর থেকে তিনি ও তার সহযোগীরা ভোট না দেওয়ার সন্দেহে জালশুকা এলাকার মৃত আব্দুল মজিদের পরিবারের উপর ক্ষিপ্ত হন এবং বিভিন্ন সময় নানা ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছেন।

এর জেরে গেলো ২৯ নভেম্বর বিকেলে ওই ইউপি সদস্য প্রার্থীর স্ত্রী হাসনা হেনা লেলি রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা আব্দুল মজিদের সোনিয়া আক্তারকে বালতি দিয়ে আঘাত করেন। কিছুক্ষণ পর ওই ইউপি সদস্য প্রার্থী আসাদ ও তার স্ত্রী হাসনা হেনা, মা হামিদা বেগম, সহযোগী রওশনারা বেগম, কামরুল খানসহ কয়েকজন তাদের বাড়িতে হামলা চালায়।

এ সময় শাশুড়ি নূরজাহান ও পুত্রবধূ সোনিয়ার জামা-কাপড় ছিড়ে টানাহেচড়াসহ এলোপাথারী মারধর করে। একপর্যায়ে পুত্রবধূ সোনিয়াকে টেনে-হেচড়ে ঘরের ভেতরে নিয়ে দরজা আটকে নির্যাতন চালায় ইউপি সদস্য প্রার্থী আসাদ।

এ সময় হামলাকারীরা বাড়িতে থাকা ছয় বছরের নাতি ছোয়াতকেও মারধর করে। ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে খুন-জখমের হুমকি দিয়ে হামলাকারীরা সেখান থেকে চলে যায়। পরে আশপাশের লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা করান। এ ঘটনায় আহত পুত্রবধূ সোনিয়া আক্তার বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু কোনও ব্যবস্থা না নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার তাগিদ দেন কালিয়াকৈর থানার ওসি মনোয়ার হোসেন চৌধুরী। এছাড়াও স্থানীয় কয়েকজন অজ্ঞাতনামা কারণে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন। ফলে ওই পরিবারটি আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে বলে জানান স্থানীয় লোকজন।

নির্যাতনের শিকার আহত বৃদ্ধা নুর জাহান বেগমের কাছে জানতে চাইলে তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে তাদের ওপর পাশবিক নির্যাতনের বর্ণনা দেন এবং তদন্তের মাধ্যমে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য প্রার্থী আসাদুজ্জামান বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা। একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আর ওসি মহোদয়ও বিষয়টি জানে। এছাড়া, আপনারা আমারই লোকজন বলে খবর প্রকাশ করতে নিষেধ করেন তিনি।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। দুই পক্ষ একটা মারামারি করেছে। এটা নিজেরা মীমাংসা করার জন্য চেষ্টা করছেন। মীমাংসা না হলে মামলা নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কেএ/ডিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: