আমি মরলে স্ত্রী-ছেলে এমপি, এ সংস্কৃতি বন্ধ করতে হবে: কাদের মির্জা

   
প্রকাশিত: ৯:০৯ অপরাহ্ণ, ১৮ জানুয়ারি ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই এবং আওয়ামী লীগের আলোচিত নোয়াখালী বসুরহাট পৌরসভার ৪র্থ বারের মতো নির্বাচিত মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, ‘আমি মরে গেলে আমার ছেলে এমপি হবে, স্ত্রী এমপি হবে, এ সংস্কৃতি বন্ধ করতে হবে, তবে কারও যোগ্যতা থাকলে সে এমপি হতে পারে। আজ সোমবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুরে বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে ভোটারদের সঙ্গে নির্বাচনোত্তর কুশল বিনিময় অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

কাদের মির্জা বলেন, ‘আগামীতে কোম্পানীগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনসহ সব নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। এখন থেকে নির্বাচনগুলো গণতন্ত্রিকভাবে হবে। প্রতিটি নির্বাচন ভোটের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় হবে।’ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘‌কোম্পানীগঞ্জে মাস্তানি চলবে না। মারামারি, হানাহানি চলবে না। সাবধান করে দিচ্ছি। কোনো অস্ত্রবাজি চলবে না। কোনো প্রকার অনিয়ম বরদাশত করা হবে না।’

তিনি বলেন, ‘গতকাল আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিএনপির কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও জামায়াতের মোশাররফ হোসাইনের সাথে দেখা করেছি। ওনারা আমাকে কোম্পানীগঞ্জের সকল বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন। আমি এজন্য ওনাদেরকে এ সমাবেশ থেকে ধন্যবাদ জানাই। পাশাপাশি অনুরোধ করবো, আমাদেরকে অপরাজনীতি এখান থেকে বন্ধ করতে হবে। সকল দল এখন থেকে তাদের দলীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনা করবে। কিন্তু এর আগে অস্ত্রগুলো, এখন তো জমা দিলে সমস্যা আছে, পানিতে ফেলে দেয়া হোক। না হলে কিন্তু বেছে বেছে ধরা হবে। এ বিষয়ে কোন ছাড় নেই। এ অস্ত্রগুলো আমাদেরকে ধ্বংস করছে। রাস্তায় মিছিল করেন, এটা আপনাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। শৃখংলা বজায় রাখার জন্য আমি প্রস্তাব দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের উপজেলা চেয়ারম্যানের ডাকে তারা (বিএনপি-জামায়াত) আসবে বলে সম্মতি দিয়েছেন। শাহাব উদ্দিন সাহেব সকল রাজনীতিক দলকে ডাকবেন। ডেকে এখানে একটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা আমরা চালু করবো। কাদের মির্জা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে বিএনপি-জামায়াত এলাকা ছাড়ে, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসলে আওয়ামী লীগ এলাকা ছাড়ে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে, বিএনপি-জামায়াতের বিরুদ্ধে মামলা করে, আবার বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসছে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে মামলা করে, এ সংস্কৃতি থেকে আমাদেরকে বের হতে হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খানের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহাব উদ্দিন প্রমুখ।

নাঈম/নিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: