প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মোস্তফা কামাল

সখিপুর, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

সখীপুরে রাতের আধারে অতর্কিত হামলায় কলেজ ছাত্র নিহত

   
প্রকাশিত: ১১:০৭ অপরাহ্ণ, ২০ জানুয়ারি ২০২১

টাঙ্গাইলের সখীপুরে রাতের অন্ধকারে অতর্কিত হামলায় আনিছুর রহমান রবিন (১৮) নামের এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই হামলায় নিহত ওই ছাত্রের সহোদর জমজভাই কলেজছাত্র আশিকুর রহমান রনি (১৮) আহত হয়ে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার চতলবাইদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ২০ জানুয়ারি (বুধবার) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নিহত ওই কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ওই রাতেই গ্রামবাসী মারামারি সন্দেহে ঘটনাস্থল থেকে তাজমুল ইসলাম (১৮) নামের আরেক কলেজ ছাত্রকে পুলিশের সোর্পদ করে। তাজমুল উপজেলার ঘেচুয়া গ্রামের প্রবাসী নুরুল ইসলামের ছেলে। নিহত আনিছুর রহমান রবিন উপজেলার চতলবাইদ গ্রামের প্রবাসী আমিনুর রহমানের ছেলে। এ বিষয়ে সখীপুর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহত আনিছুর রবিন ও আহত জমজ আশিকুর রনি সখীপুর সরকারি মুজিব কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

নিহত আনিছুর রহমান ওরফে রবিনের ফেসবুক আইডিতে গিয়ে দেখা যায়, সে দুইদিন আগে ‘মৃত্যু খুব কাছেই’ লিখে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন। তাঁর বন্ধুরা এটিকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড দাবি করে অপরাধীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চান।

আহত আশিকুর রহমান রনি জানায়, গতকাল মঙ্গলবার রাত আটটার দিকে দুইভাই, সহপাঠী এক খালাতো বোন ও আরও দুই শিশুকে নিয়ে বাড়ি থেকে আড়াই শ গজ দূরে বাউল গানের আসরে যান। রাত ১১টার দিকে সবাইকে নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে হঠাৎ পেছন থেকে একদল দুর্বৃত্ত তাদের ওপর হামলা করে মারপিট শুরু করে। এ সময় তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। সহপাঠী কলেজছাত্রী ও দুই শিশু দৌড়ে বাড়িতে চলে যায়। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে আহত আনিছুর রহমান রবিন ও আশিকুর রহমান রনিকে উদ্ধার করে রাত ১টার দিকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। ওই সময় কতর্ব্যরত চিকিৎসক আনিছুর রহমান রবিনকে মৃত ও আশিকুর রহমান রনিকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ব্যাপারে সখীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওসমান গণি বলেন, মারামারির ঘটনার কথা বলা হলেও নিহত আনিছুর রহমান রবিনের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে সুরতহাল প্রতিবেদনে আনিছুরের দুই চোখ লাল ছিল বলে লেখা হয়েছে।

সখীপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই বদিউজ্জামান বলেন, আপাতত থানায় ইউডি মামলা নেওয়া হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এমআর/এনই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: