প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

মো. ইলিয়াস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

নেত্রীদের সন্তানের বাইরে কেউ প্রধানমন্ত্রী হতে পারবে না, কেন এই সিস্টেম?

   
প্রকাশিত: ১১:৩৩ অপরাহ্ণ, ২১ জানুয়ারি ২০২১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেছেন, সবচেয়ে বড় চেতনা হচ্ছে গণতন্ত্র। যেই দেশ (পাকিস্তান) জনগণের ভোটাধিকারকে রক্ষা করা হয়নি বলে স্বাধীন হয়েছে। সংবিধানে এটা শক্তিশালী ভাবে লেখেছে। জনগণের ভোটাধিকার যারা কেড়ে নেয় তারা মুক্তিযুদ্ধ চেতনার সবচেয়ে বড়ে শত্রু।

তিনি বলেন, যারা বাংলাদেশ ব্যাংক লুট করে, শেয়ার মার্কেট লুট করে, সম্পত্তি পাচার করে, যারা মানুষকে আরও বড়ো বৈষম্যের দিকে ঠেলে দেয় তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সবচেয়ে বড় শত্রু। জাতীয়তাবাদ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মূল শক্তি; যারা বাংলাদেশকে অন্য দেশের কাছে বিকিয়ে দেয় তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সবচেয়ে বড়ো শত্রু। যারা সাম্প্রদায়িক তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সবচেয়ে বড়ো শত্রু।

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) পুরান পল্টন প্রিতম জামান টাউয়ারে এক বক্তৃতা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ এর উদ্যোগে “তারুণ্যের বাংলাদেশ ভাবনা-২০২১” শীর্ষক উন্মুক্ত বক্তৃতা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

আসিফ নজরুল বলেন, আমি সবসময় বলি জঘন্যতম অন্যায় জাতীয় পার্টি ও বিএনপির আমলে হয়েছে। জাতীয় পার্টি আমলের ভুয়া নির্বাচন করে ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করা হয়েছে। জনগণ রুখে দাড়িয়েছে এরশাদকে পদত্যাগে বাধ্য করিয়েছে। বিএনপির আমলে ১৯৯৬ সালে ভুয়া নির্বাচনের চেষ্টা করা হয়েছে ৬ মাসের মধ্যে তাদেরকে বিদায় করছে।

“আজকে ১২ বছর ধরে অদ্ভুত, অসম্ভব, অকল্পনীয় নির্বাচনে যে নির্বাচনে আগের রাতে হয়ে যায়। সারা পৃথিবীর ইতিহাসে বা বাংলাদেশের সামরিক শাসন আমলে কি এরকম হয়েছে? নির্বাচন আগের রাতে হয়ে গেছে, প্রার্থীকে পিটানো হয়েছে? কে না বলবে সত্যি ঘটনা। এতো বড়ো অন্যায়কে আমরা মেনে নিচ্ছি।”

তিনি বলেন, বাংলাদেশের জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে সম্পদের সুষম বন্টন করতে হবে। এখানে নুর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে পারবে এরকম একটা ব্যবস্থা থাকতে হবে; তার যোগ্যতা দিয়ে। এখানে কে কার ছেলে সেটা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী হবে; এটা কি রাজতন্ত্র নাকি?

আসিফ নজরুল আরও বলেন, কেউ বুকে হাতদিয়ে বলতে পারবে হাজার যোগ্যতা থাকার পরও নেত্রীদের সন্তানের বাইরে কেউ প্রধানমন্ত্রী হতে পারবে। কেন পারে না, কেন এই সিস্টেম? এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নয়। আমার মালয়েশিয়া কানাডায় বাড়ি থাকবে এটা এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা উপলব্ধি করে এটাকে ধারণ করার চেষ্টা করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আমাদের শক্তিশালি হতে হবে।

আমিনুল/শিইসি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: