>
   
প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

শাহীন মাহমুদ রাসেল

কক্সবাজার প্রতিনিধি

গুলিতে কিশোর আহত, র‍্যাবের দাবি মাদক ব্যবসায় জড়িত

   
প্রকাশিত: ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ, ৯ এপ্রিল ২০২১

কক্সবাজার সদরের লিংকরোডে র‍্যাবের গুলিতে মেহেদী হাসান বাবু (১৪) নামের এক কিশোর গুরুতর আহত হয়েছেন। তার বুকে এবং পায়ে দুটি গুলি লেগেছে বলে জানা যায়। বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) বিকেল তিনটায় টার দিকে এঘটনা ঘটে। সূত্র জানা যায়, ঝিলংজার লিংকরোড মেরিনসিটি কম্পেক্সের সামনে মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে র‍্যাবের গুলাগুলির ঘটনা ঘটে।

এসময় মেহেদী হাসান বাবু নামে একজন গুলিবিদ্ধ হয় এবং তরিকুল ইসলাম (১৯) নামে একজন ৪ হাজার পিস ইয়াবা ও অস্ত্রসহ র‍্যাবের হাতে আটক হয়।

আহত কিশোর, ঝিলংজার মুহুরীপাড়ার আব্দুল্লাহর পুত্র এবং অপর ধৃত তরিকুল রামু খাইম্যারঘোনা এলাকার আব্দুল করিমের পুত্র।

এদিকে র‍্যাবের দাবী, গুলিবিদ্ধ মেহেদী ও তরিকুল উভয়েই ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত। তাদের সাথে র‍্যাবের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এমনকি ঘটনাস্থল থেকে ৪ হাজার ইয়াবা ২ রাউন্ড তাজা কার্তুজ এবং একটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

অন্যদিকে গুলিবিদ্ধ মেহেদীর পরিবার বলছে, আহত মেহেদী ইলিয়াস মিয়া চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। পাশাপাশি সে রং মিস্ত্রী হিসেবে দিন মজুরের কাজ করতো। সর্বশেষ পাওয়া তথ্যমতে, র‍্যাবই গুলিবিদ্ধ মেহেদীকে অতি দ্রুত কাল বিলম্ব না করে উন্নত চিকাৎসার জন্য নিজ খরচে চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।

র‌্যাবের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া), সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আবু সালাম চৌধুরী জানান, র‌্যাব গোপন সূত্রে জানতে পারে কতিপয় মাদক কারবারী ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেরিনসিটি কমপ্লেক্সের সামনে অবস্থান করছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যাবের একটি দল আজ বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে সেখানে অভিযান চালায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে ৮/১০ জন সংঘবদ্ধ অস্ত্রধারী মাদক কারবারী র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষন করে। এসময় আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরা পাল্টা গুলি করে।

পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় মেহেদী হাসান বাবু ও মো. তারেকুল ইসলামকে ধরা হয়। তাদের হেফাজত থেকে উদ্ধার করা হয় একটি দেশীয় অস্ত্র, ২ রাউন্ড কার্তুজ ও ৪ হাজার পিস ইয়াবা।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরও জানান, র‌্যাব সদস্যরা গুলিবিদ্ধ মেহেদী হাসান বাবুকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য র‌্যাবের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের প্রক্রিয়া চলছে।

এদিকে, গুলিবিদ্ধ মেহেদীর প্রাথমিক চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল চত্বরে তার স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে এবং উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান মেহেদী ইয়াবা ব্যবসায়ী নয় এবং সে একজন নিয়মিত স্কুলছাত্র।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: