প্রচ্ছদ / বিনোদন / বিস্তারিত

প্রথমবার নিজের ৩ বিয়ের গল্প শোনালেন শাহিদ কাপুরের মা

   
প্রকাশিত: ৮:৩০ পূর্বাহ্ণ, ২০ এপ্রিল ২০২১

বলিউড সুপারস্টার শাহিদ কাপুর ও ঈশান খট্টরের মা নীলিমা খট্টর। শাহিদের জন্মের পর তিনি পা রেখেছিলেন ইন্ডাস্ট্রিতে। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি একজন নৃত্যশিল্পী, লেখক এবং পরিচালক। প্রতিভার দিক দিয়ে নীলিমা তার সমসাময়িক অনেকের থেকেই এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু ব্যক্তিগতসহ নানা কারণে বারবার অবরুদ্ধ হয়েছে তার এগিয়ে যাওয়ার গতি। জীবন কখনও কারো জন্য থেমে থাকে না। বাস্তবে আমরা যা দেখি তেমনটাও হয় না। তেমনই এক জীবন যোদ্ধা বলিউড অভিনেতা শাহিদ কাপুরের মা মা নীলিমা আজেম।

নিজের ব্যক্তিগত জীবন, বিয়ে, সম্পর্ক, বিচ্ছেদ নিয়ে মুখ খুলেছেন শাহিদ কাপুরের মা। নেটফ্লিক্সের ‘ডলি কিটি অউর ওহ চমকতে সিতারে’ ছবিতে শেষ দেখা গিয়েছে নীলিমা আজেমকে। বলিউড বাবলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নীলিমা বলেছেন, ১৯৭৯ সালে পঙ্কজকে বিয়ে করেন তিনি। এরপর ১৯৮১-র ২৫ ফেব্রুয়ারি জন্ম হয় শাহিদ কাপুরের। এর সাড়ে তিন বছর পরেই বিচ্ছেদ হয় যায় নীলিমা-পঙ্কজের। ডিভোর্সের পর অভিনেত্রী সুপ্রিয়া পাঠককে বিয়ে করেন পঙ্কজ।

নীলিমা বলেন, পঙ্কজ কাপুরের সঙ্গে ডিভোর্সের আগে পর্যন্ত কোনদিন তিনি কারও থেকে প্রত্যাখ্যাত হননি। ছোট থেকেই তার চারপাশের সবকিছু ভীষণ সুন্দর ছিল। নিজেকে তিনি ‘ঈশ্বরের প্রিয় সন্তান’ মনে করতেন। প্রথম বিয়ের থেকে এই ধাক্কা না পেলে জীবন সম্বন্ধে অন্য ধারনা পোষণ করতেন তিনি।

নীলিমা বলেন, যখন আমি ১৫ বছরের, পেশাদার ডান্সার হিসাবে কাজ শুরু করি। আর কোনও দিন পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। সে সময়ের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকের ডান্সার ছিলাম। খুব ভাল বন্ধুরা সবসময় আমাকে ঘিরে থাকত। নিজের প্রিয় বন্ধুকে বিয়ে করলাম। তাই আমার জানাই ছিল না, জীবনে এমনও হয়, যখন পা পিছলে মানুষ পড়ে যায়। আর প্রত্যাখ্যানের তো কোনও জায়গায় নেই। কারণ সবাই আমাকে পছন্দ করত, ভালোবাসত। এটাই ছিল প্রথমবার, যখন আমিও পিছলে গিয়েছিলাম।

১৯৮৪ সালে পঙ্কজ কাপুরের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ১৯৯০-এ রাজেশ খট্টরকে বিয়ে করেছিলেন নীলিমা। তাদের ছেলে ঈশান খট্টরও এখন বলিউডের উঠতি তারকা। ইতিমধ্যেই অবশ্য ‘ধড়ক’, ‘বিয়ন্ড দ্য ক্লাউডস’, ‘কালি পিলি’, ‘আ স্যুইটেবল বয়’ ছবিতে অভিনয় করে সমালোচকদের বিপুল প্রশংসা কুড়িয়েছেন ঈশান।

অভিনেত্রীর প্রথম এবং দ্বিতীয় স্বামী এখন বিবাহিত। পঙ্কজ কাপুর ১৯৮৮ সালে বিয়ে করেছেন সুপ্রিয়া পাঠককে। দ্বিতীয় পক্ষের স্বামী রাজেশ খট্টর ২০০৮ সালে বিয়ে করেছেন বন্দনা সজনানিকে। তাদের একটি ছেলেও হয়েছে কয়েক বছর আগে। ২০০১ সালে রাজেশ খট্টরের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় নীলিমার। এরপর ২০০৪ সালে নীলিমা বিয়ে করেন শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিল্পী রাজা আলি খানকে। যদিও সেই বিয়েও টেঁকেনি বেশিদিন। ২০০৯ সালে বিচ্ছেদ হয়ে যায় নীলিমা-রাজার। পরিচালনা, লেখালেখি, অভিনয় এবং কত্থক ঘিরেই আবর্তিত তার জীবন।

নাঈম/নিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: