প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

পুলিশের গুলিতে শ্রমিক মৃত্যু, তদন্ত করতে দুই পৃথক কমিটি গঠন

   
প্রকাশিত: ১১:৪২ অপরাহ্ণ, ১৭ এপ্রিল ২০২১

রবিউল হোসেন রবি, চট্টগ্রাম থেকে: চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার গন্ডামারা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পুলিশের সাথে শ্রমিকের সংঘর্ষে নিহত হয়েছে পাঁচ শ্রমিক। এ ঘটনার কারণ জানতে জেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে আলাদা ২টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আজ শনিবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান ও চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান বলেন, ‘নিহতের ঘটনা তদন্তে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুমনী আক্তারকে প্রধান করে ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বাকি তিন সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কবির আহম্মেদ, কলকারখানা অধিদফতর চট্টগ্রামের লেবার পরিদর্শক মাসুদ রানা, বিদ্যুৎ বিভাগ চট্টগ্রামের সহকারী প্রধান প্রকৌশলী অভিজিৎ কুরি।’

কমিটিকে আগামী ৩ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে বলেও জানান তিনি। পাশাপাশি নিহত পাঁচ শ্রমিকের পরিবারকে ৩ লাখ করে ক্ষতিপূরণ ও আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে সহায়তার ঘোষণা দেন জেলা প্রশাসক।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘৫ জন নিহতের ঘটনায় চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির হোসেনকে। এছাড়া অন্য দুই সদস্য পুলিশ সুপার নেছার আহমেদ এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কবির হোসেন।’ কমিটিকে আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

এর আগে সোমবার (১৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিকদের ১২ দফা দাবিতে বিক্ষোভকালে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে ডাকে বিদ্যুৎ নির্মাণ কর্তৃপক্ষ। বেলা পৌণে ১২টার দিকে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের জোর করে দমাতে গেলে উত্তপ্ত হয়ে উঠে পরিবেশ। এরপরই শ্রমিকরা একত্রিত হয়ে পুলিশের ওপর হামলা করলে পুলিশও তাদের ওপর গুলি চালায় এতে ঘটনাস্থলেই চারজন ও চমেক হাসপাতালে একজন নিহত হয়। আহত হয় অন্তত আরও ১৭ জন। এছাড়া আহত হয় তিন পুলিশ সদস্যও।

শাওন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: