প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

অটোরিকশার চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু

   
প্রকাশিত: ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ, ৭ মে ২০২১

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় চাচির লাশ দেখে অটোরিকশা করে বাড়ি ফেরার পথে চাকার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে রুবাইয়াত আফরোজ সেজুতি (১৫) নামের এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৬ মে) দুপুরে ভালুকা-সাতেঙ্গা সড়কে সাতেঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সেঁজুতি ভালুকা পৌর শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের রুহুল আমিন মাস্টারের মেয়ে। সে স্থানীয় সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রুবাইয়াত আফরোজ সেজুতি চাচি বাদল মিয়ার স্ত্রী নাসিমা আক্তার (৪৫) বুধবার এশার নামাজে সেজদারত অবস্থায় মারা যান। বৃহস্পিতবার সকাল ১১টায় তার চাচির লাশ দাফন হয়। দাফনের পর অটোরিকশয় তার মা সাতেঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষিকা আকলিমা আক্তারের সঙ্গে ভালুকা আসার পথে ভালুকা-সাতেঙ্গা সড়কে ভালুকা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী উপজেলার সাতেঙ্গা গ্রামের রুহুল আমীন মাস্টারের একমাত্র মেয়ে রুবাইয়াত আফরোজ সেজুতির ওড়না অটোরিকশার চাকায় পেঁচিয়ে যায়। এতে গলায় ফাঁস লেগে গুরুতর আহত হয় সে। আহত অবস্থায় সেজুতিকে ভালুকা উপজেলা সস্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তার মা আকলিমা খাতুন সেজুতির ঈদের নতুন জামা হাতে নিয়ে কান্নায় বার বার জ্যাঞান হারাচ্ছেন। তার বাবা রুহুল আমীন মাস্টার জানান, আমি আমার ভাবির দাফন শেষ করে মোনাজাতে থাকা অবস্থায় তার মায়ের সঙ্গে ভালুকা যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সেজুতী দুই দিন আগে ঈদের নতুন জামা নিজে পছন্দ করে কিনে আনে।

বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় মোস্তুফা মতিন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে জানাজা নামাজ শেষে পারিবারিক গোরস্থানে রুবাইয়াত আফরোজ সেজুতির লাশ দাফন করা হয়। ভালুকা মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ মাহমুদুল ইসলাম জানান, এটি একটি দুর্ঘটনা। নিহতের পরিবারের আবেদনের পেক্ষিতে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ পরিবারের কাছে হস্থান্তর করা হয়েছে।

নাঈম/নিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: