প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

আক্কাস আল মাহমুদ রিদয়

বুড়িচং, কুমিল্লা প্রতিনিধি

আব্দুল মতিন খসরু’র শূন্য আসনে চলছে স্নায়ু যুদ্ধ

   
প্রকাশিত: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ, ১১ জুন ২০২১

সাবেক আইনমন্ত্রী মরহুম এ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু’র শূন্য হওয়া আসন্ন জাতীয় সংসদের কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং- ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের উপনির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না বিএনপি। ফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেলেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়া যাবে বলে ধরে নিয়েছেন দলটির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। তাঁরা মরিয়া হয়ে মনোনয়ন পেতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখে চলেছেন তাঁরা। এই আসনে জেলা, থানা, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাদের পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থীসহ আইনজীবি, ভাই,ভাবিসহ সহযোগী সংগঠনের নেতারাও প্রার্থী হতে চাইছেন। এর সঙ্গে মনোনয়ন দৌড়ে যুক্ত হয়েছেন উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও প্রয়াত সংসদ সদস্যদের পরিবারের সদস্য এবং অনেক প্রভাবশালী নেতা, ব্যবসায়ীরাও।

ফলে এবার আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি অতীতের চেয়েও বেশি হয়েছে।জানা গেছে ঢাকা ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ৩৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী।উপনির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নেমে পড়েছেন প্রচার-প্রচারণায়। নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী প্রতীক বরাদ্দের আগে আনুষ্ঠানিক প্রচারণার সুযোগ না থাকলেও এ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী ও দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীরা গণসংযোগ আর শোডাউনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। আসনটির দুটি উপজেলা (বুড়িচং এবং ব্রাহ্মণপাড়া) ভারত সীমান্তবর্তী হওয়ার পরও নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপেক্ষিত হচ্ছে করোনা স্বাস্থ্যবিধি। মাস্ক ছাড়াই নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন শত শত মানুষ। সাড়ে তিন লাখের বেশি ভোটারের এই আসনে রয়েছে।

এ আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে চলছে স্নায়ুযুদ্ধ। সেইসাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও যুদ্ধ চলছে। নিজ নিজ নেতাদের পক্ষে মনোনয়ন প্রাপ্তির খবর পৌছানো হচ্ছে এবং প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীদের নিয়ে ব্যপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। মিনিটে মিনিটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্রেকিং নিউজ আসছে। ওমুক নমিনেশন পেয়ে গেছেন। সময় সময় বুলেটিন আসছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। পাশাপাশি নেগেটিভ নিউজ ও বাড়ছে। প্রার্থীদের বিরুদ্ধে অনলাইনে চলছে প্রচারণা। সমর্থকদের এই স্নায়ু যুদ্ধ মাঝে মাঝে হাস্যরসেরও সৃষ্টি করছে। আজ পর্যন্ত ৩৫জন সম্ভাব্য প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন চেয়ে দলের নিকট আবেদন করেছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠ ছেড়ে এখন ঢাকায়। সাথে রয়েছেন নিজ নিজ সমর্থকরা। ঢাকায়ও শোডাউন চলছে। মনোনয়ন পত্র দলীয় কার্যালয়ে জমাকে কেন্দ্র করেও শোডাউন এর পাশাপাশি নানা ধরনের মেরুকরণ চলছে। কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারে দ্বারে জীবনী নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। হেভিওয়েট প্রার্থীরা আছেন মহাটেনশনে। হেভিওয়েট প্রার্থীদের বিষোদগার করে অনলাইন পোর্টাল ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুৎসা রটানো হচ্ছে। এরই মধ্যে কয়েকজন প্রার্থী এ ব্যপারে থানায় জিডিও করেছেন। এত হাঁক ডাক আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সরগরম থাকলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলীয় মনোনয়ন বোর্ড কাকে মনোনয়ন দেন সেটাই দেখার বিষয়। কিন্তু তারপরও মনোনয়ন প্রত্যাশী ও তাদের সমর্থকদের কর্মকাণ্ড আওয়ামীলীগের মাঠ পর্যায়ের চেইন অব কমান্ডকে প্রশ্নবিদ্ধ ও করে তুলছে। আবার হাস্যরসেরও সৃষ্টি করছে। কেউ কেউ নির্বাচনের নামে মাঠ দখলেরও চেষ্টা চালাচ্ছে। রাজনীতির মাঠে বিশেষ করে আওয়ামী রাজনীতিতে সামান্যতম ভূমিকা নেই এমন লোকজনও দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করায় হাস্যরসের সৃষ্টি হয়। জানা যায়, আগামী শনিরবার/রবিবার ১২/১৩ জুন সিদ্ধান্ত হতে পারে কে পাচ্ছে নৌকা। সে পর্যন্ত স্নায়ুযুদ্ধ চলতে থাকবে বলে অনেকেই মনে করেন।গত ১৪ এপ্রিল সাবেক আইন মন্ত্রী মতিন খসরুর মৃত্যুর পর থেকেই নানাভাবে আলোচনায় আসতে থাকে আওয়ামীলীগের অনেক প্রার্থীদের নাম। বিএমপি নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা না জানালেও বেশ কয়েকজন সোশাল মিডিয়াসহ নানাভাবে নিজেদের প্রচারনা চালাতে দেখা গেছে। জাতীয় পার্টি থেকে জসিম উদ্দিনকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। খসরুর যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে দল থেকে কাকে মনোনয়ন দেয়া হবে এ নিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যেও চলছে আলোচনা।

এ পর্যন্ত যারা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন তারা হলেন,কুমিল্লা দক্ষিন জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বুড়িচং উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন,কুমিল্লা জেলা আইনজিবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও প্রয়াত মতিন খসরুর ভাই আব্দুল মমিন ফেরদৌস, প্রয়াত মতিন খসরুর স্ত্রী সেলিম সোবহান খসরু, ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধূরী, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর খান চৌধূরী, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মোঃ আবু ছালেক (সেলিম রেজা সৌরভ),বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের পরিচালক এস.এম জাহাঙ্গীর, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হেলেনা জাহাঙ্গীর, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য জাহেদুল আলম, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের যুগ্ম আহব্বায়ক মোহাম্মদ আলী চৌধূরী মানিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিদার মোঃ নিজামুল ইসলাম, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শাহিদা বেগম, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হাসেম খাঁন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সরকার, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য মোঃ শাহ জালাল, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা উপ কমিটির সদস্য আনিসুর রহমান, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবদুল বারী, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও ডিএলম গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ মতিন এমবিএ, কুমিল্লা দক্ষিন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আল-আমিন, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ জাহের। আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মাহতাব হোসেন, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য জিয়াউল হাসান মাহমুদ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ নেতা (স্বাচিপ) নওশের আলম, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আল আমিন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোস্তফা কামাল, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আখলাক হায়দার। কুমিল্লা দক্ষিন জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মোঃ আবদুছ ছালাম বেগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক সহ-সাহিত্য সম্পাদক মোহাম্মদ ফারুক আহাম্মদ, বুড়িচং উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম। ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল জলিল, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সহ-সম্পাদক এহতেশামুল হাসান ভূইয়া রুমি, বুড়িচং উপজেলা যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস, ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ তরিকত উল্লাহ। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, বুড়িচং উপজেলা যুবলীগের সদস্য এম এ জলিল ভূইয়া।

এর প্রেক্ষিতে ২ জুন নির্বাচন কমিশন কুমিল্লা-৫ সহ দেশের শূন্য তিন আসনে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেন। এতে বলা হয় মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিন ১৫ জুন, মনোনয়নপত্র বাছাই ১৬ জুন, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন ২৩ জুন, প্রতীক বরাদ্দ ২৪ জুন ও ভোটগ্রহণ হবে আগামী ১৪ জুলাই পরির্বতন করে ১৮ জুলাই ঘোষণা।

এআইআ/এইচি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: