প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

রেদওয়ান শাওন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

সাকিবকে কড়া সমালোচনায় ‘ধুয়ে’ দিচ্ছে বিশ্ব ক্রিকেটাঙ্গন

   
প্রকাশিত: ৫:২৪ অপরাহ্ণ, ১২ জুন ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

সাকিবের গতকালের ঘটনা নতুন করে লেখার খুব প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। কারণ সাকিব কিছু করবেন আর তা দেশের মানুষ জানবেন না, এমন ঘটনা দেশের ক্রিকেটে বিরল। সাকিব যে সবসময় ভিন্ন পথে হাঁটে এর অনেক উদাহরণ সাকিব অনেকবার নিজ কর্মকাণ্ডে বুঝিয়ে দিয়েছেন। তবে সাকিবের পরিধি যে বিশ্বব্যাপী তা বুঝি আবার নতুন করে জানলো দেশের শত শত ক্রিকেটভক্ত। গতকাল শুক্রবার (১১ জুন) সাকিবের ‘লাথি মেরে স্ট্যাম্প ভাঙা’ ঘটনার পর তার সমালোচনায় নেমেছে বিশ্ব ক্রিকেটের অনেক তারকা।

গতকাল আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচে নিজের বোলিংয়ের সময় আবাহনীর অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের বিপক্ষে এলবিডব্লিউর আবেদনে আম্পায়ারের সাড়া না পেয়ে স্টাম্পে লাথি মারেন সাকিব। পরের ওভারেই বৃষ্টি নামলে আম্পায়ার খেলা বন্ধ করলে সাকিব আবারও স্টাম্প উপড়ে ফেলেন।

এখানেই থেমে থাকেননি দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় পোস্টার বয়। ড্রেসিংরুমে ফেরার পথে গ্যালারির দিকে তাকিয়ে অশোভন ভঙ্গিতে কিছু একটা বলতে দেখা গিয়েছে সাকিবকে। এমন সময় আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদও ড্রেসিংরুম ছেড়ে বেরিয়ে এগিয়ে যেতে থাকেন সাকিবের দিকে। তেড়ে যেতে দেখা যায় সাকিবকেও। পরে দুজনকে ছাড়িয়ে দেন দুই দলের ক্রিকেটাররা। পরে আবাহনীর ড্রেসিংরুম গিয়ে খালেদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন সাকিব বলে জানা যায়।

সাকিবের এই আচরণে দেশজুড়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। দেশের কেউ কেউ সাকিবের এমন আচরণকে প্রতিবাদ স্বরূপ নিলেও অনেকে আবার বলছেন প্রতিবাদের ভাষা এমন হয়না। অন্যভাবেও নিজের প্রতিবাদকে তুলে ধরতে পারতেন সাকিব। যেমনটা করেছিলেন নিদহাস ট্রফিতে। সাকিব যে একজন প্রতিবাদী মানুষ এ কথা দেশের ক্রিকেটে নতুন নয়। তবে সাকিবের মতো বড় একটা চরিত্রের সাথে এমন বাজে উদাহরণ যেন কোনোভাবেই শোভা পায়না। আর সাকিবের এমন আচরণকে সহজভাবে নিতে পারেনি বিশ্ব ক্রিকেটের সাথে সংশ্লিষ্ট অনেক মানুষ।

ভারতের সাবেক খেলোয়াড় ভিরেন্দার শেবাগ তো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাকিবকে খোঁচা মেরেই দিয়েছেন পোস্ট। সাকিবের সেই ঘটনার একটি ভিডিওকে রিটুইট করে প্রধানমন্ত্রীর সাথে সাকিবের একটি ছবি পোস্ট করে শেবাগ মন খারাপের ইমোজি দিয়েছেন। পরে কমেন্ট বক্সে লিখেছেন এটা অপ্রত্যাশিত।

সাকিবের কড়া সমালোচনা করে ভারতের আরেক সাবেক ক্রিকেটার ভেঙ্কটেশ প্রসাদ লিখেন, ‘ক্রোধ নিরর্থক, অত্যাধিক ক্রোধ ধ্বংসাত্মক। সাকিবের মতো অসাধারণ সামর্থবান একজন ক্রিকেটারের কাছে এমন আচরণ সত্যি নিন্দনীয়। বিশ্বকাপে অসাধারণ খেলার পর ২ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হোন। অসাধারণ একজন খেলোয়াড়ের এমন বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে দেখা সত্যি আফসোসের।’

এদিকে সাকিবের এই ঘটনায় তার সমালোচনা করেছেন আইসিসির সাবেক ম্যাচ রেফারি রোশান মাহানামা। তিনি বলেন, ‘এ ধরণের ঘটনা দেখে আমি হতাশ। কর্তৃপক্ষকে মনে করিয়ে দেয়া উচিৎ খেলার চেয়ে কেউ বড় নয়। এটি ক্রিকেটের প্রতি শ্রদ্ধার অভাব চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। তারা (সাকিবরা) এই খেলাটির দূত। তাদের অসংখ্য মানুষ অনুসরণ করে। তাই তাদেরকে অবশ্যই মাঠে এবং মাঠের বাইরে অনুকরণীয় হতে হবে। মানুষ হিসেবে তাদেরকে ভালো হতে হবে।’

আইসিসি এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে সম্বোধন করে ভারতীয় ক্রীড়া সাংবাদিক আনন্দ দতলা লিখেছেন, ‘তাকে সবধরণের ক্রিকেট থেকে ১ বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা উচিৎ। এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমাদের রাস্তার ক্রিকেটেও এমন ঘটনা দেখা যায় না।’

এদিকে মাঠে নিজের অসদাচরণের জন্য খেলার পর পরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষমা চেয়েছেন সাকিব। তিনি লিখেন, ‘প্রিয় ভক্ত ও অনুসারীরা, নিজের মেজাজ হারানোর জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত। সেই সঙ্গে ম্যাচের আবহ নষ্ট করার জন্য ক্ষমা চাচ্ছি। বিশেষ করে যারা বাড়িতে বসে খেলা দেখছেন। আমার মতো একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটারের কাছে এমন আচরণ কোনোভাবেই কাম্য নয়। কিন্তু মাঝে মাঝে দুর্ভাগ্যবশত এ রকম হয়ে যায়। এই মানবিক ভুলের কারণে আমি দল, ম্যানেজমেন্ট ও টুর্নামেন্টের কমিটির কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। আশা করছি ভবিষ্যতে আর এমনটা হবে না। ধন্যবাদ, সবার জন্য ভালোবাসা।’

নিজের এই আচরণের শাস্তি ইতিমধ্যে পেয়েও গেছেন সাকিব। মোহামেডান অধিনায়ক সাকিবকে দেশের ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে চার ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মোহামেডানের ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শাওন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: