চুরির অভিযোগে হাত-পা বেঁধে লাঠিপেটা, কান্নায় ছটফট করছিল শিহাব

   
প্রকাশিত: ৮:২৯ অপরাহ্ণ, ৩০ জুলাই ২০২১

ছবি: প্রতিনিধি

নওগাঁর মহাদেবপুরে স্মার্টফোন চুরির অভিযোগে শিহাব হোসেন (১৪) নামে এক কিশোরকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের অভিযোহগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার (৩০ জুলাই) সকালে উপজেলার বাগাচারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শিহাবকে মারধরের ঘটনায় ওই এলাকায় নির্মাণাধীন একটি অটোগ্যাস ফিলিং স্টেশনের নৈশ প্রহরীকে আটক করেছে পুলিশ। আটক ব্যক্তির নাম বকুল হোসেন (৫৫)। তিনি উপজেলার চৌমাশিয়া গ্রামের বাসিন্দা। নির্যাতনের শিকার শিহাব বাগাচারা গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে।

নির্যাতনের শিকার কিশোরের পরিবার, স্থানীয় বাসিন্দা ও মহাদেবপুর থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সকাল ৭টার দিকে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে উপজেলার বাগাচারা এলাকায় নির্মাণাধীন একটি অটোগ্যাস ফিলিং স্টেশন এলাকায় যায় শিহাব নামের শিশুটি। এ সময় মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগ তুলে ফিলিং স্টেশনের নৈশপ্রহরী বকুল হোসেন ও কয়েকজন নির্মাণ শ্রমিক শিশুটিকে হাত-পা বেঁধে লাঠি দিয়ে মারধর করে।

এরপর শিহাবকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় নৈশপ্রহরী বকুল তার কক্ষে আটকে রাখে। পরে ঘটনা জানাজানি হলে শিশুটির পরিবারের লোকজন ও স্থানীয় বাসিন্দারা এসে শিশুটিকে সেখান থেকে উদ্ধার করে। লোকজন আসার আগেই নৈশপ্রহরী বকুল হোসেন সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

নির্যাতিত শিহাবের বাবা খোরশেদ আলম বলেন, ‘আমার ছেলে শিহাবকে হাত-পা বেঁধে মারধরের ঘটনার ভিডিও এলাকার বিভিন্ন মানুষের মোবাইলে ছড়িয়ে পড়েছে। ভিডিওতে দেখতে পাইছি, ছেলেক হাত-পা বেঁধে কিভাবে মারধর করা হয়েছে। আমি এ নির্যাতনের বিচার চাই। মহাদেবপুর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ৷ গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, এ ঘটনায় ইতোমধ্যে মূল অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদেরও আটকের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ফরমান/মস

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: