রাজশাহী মেডিকেলে একদিনে করোনায় আরও ১৫ জনের মৃত্যু

   
প্রকাশিত: ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ, ২ আগস্ট ২০২১

ছবি: ইন্টারনেট

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (১ আগস্ট) সকাল ৮টা থেকে সোমবার (২ আগস্ট) সকাল ৮টার মধ্যে তারা মারা যান। এর আগে এ হাসপাতালে গত ২৮ জুন ও ১৪ জুলাই দুদিন সর্বোচ্চ ২৫ জন করে মারা যান। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, নতুন করে মারা যাওয়া ১৫ জনের মধ্যে সাতজন করোনা পজিটিভ ছিলেন। আর আটজন মারা গেছেন করোনার উপসর্গ নিয়ে।

তিনি আরও জানান, মৃতদের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সাত জন এবং উপসর্গ নিয়ে আট জন মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর ছয় জন, পাবনার পাঁচ জন, নওগাঁর দুজন, নাটোরের একজন এবং চুয়াডাঙ্গার একজন।

গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছে ৩৭ জন। আর, সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ৫৯ জন। হাসপাতালে ৫১৩টি করোনা ডেডিকেটেড শয্যার বিপরীতে বর্তমানে রোগী ভর্তি আছে ৩৯০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ভর্তি হওয়া ৩৭ জনের মধ্যে রয়েছে রাজশাহীর ১৩ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাঁচ জন, নাটোরের আট জন, নওগাঁর তিন জন, পাবনার তিন জন, সিরাজগঞ্জের দুজন, কুষ্টিয়ার দুজন এবং চুয়াডাঙ্গার একজন।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটে বর্তমানে যে ৩৯০ জন ভর্তি রয়েছে, তাদের বেশির ভাগই রাজশাহীর। করোনায় ও উপসর্গে রাজশাহীর ১৬৩ জন চিকিৎসা নিচ্ছে এখানে। এ ছাড়া চিকিৎসা নিচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৩১ জন, নাটোরের ৬৬ জন, নওগাঁর ৩৫ জন, পাবনার ৭২ জন, কুষ্টিয়ার ১১ জন, চুয়াডাঙ্গার তিন জন, সিরাজগঞ্জের ছয় জন, মেহেরপুরের একজন, বগুড়ার একজন এবং ঝিনাইদহের একজন।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় মৃত ১৫ জনের বয়স বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে রয়েছেন দুজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে দুজন এবং ৬১ বছরের ঊর্ধ্বে মারা গেছেন আট জন। মৃতদের মধ্যে নয় জন পুরুষ এবং ছয় জন নারী।

এদিকে, গতকাল রোববার এক হাজার ১৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২২২ জনের করোনা পজিটিভ হয়েছে। শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল ২৩ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ।

উল্লেখ্য, সোমবার (২ আগস্ট) সকাল ৮টা পর্যন্ত এ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি ছিলেন ৩৯০ জন। হাসপাতালে মোট করোনা ডেডিকেটেড শয্যার সংখ্যা এখন ৫১৩টি।

তুষার/জু.সা.এ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: