প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

শামীম হোসেন সামন

দোহার-নবাবগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি

৫ মাসেও খোঁজ মেলেনি দোহারে নিখোঁজ দুই যুবকের

   
প্রকাশিত: ৫:৪৩ অপরাহ্ণ, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

নিখোঁজ হওয়ার পাঁচ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো খোঁজ মেলেনি ঢাকার দোহার উপজেলার ঘাটা গ্রামের দুই যুবক সাইদুল মৃধা ও সোহেলের। সন্তানকে ফিরে পেতে দিনরাত কান্নাকাটি করছে তাদের মা। নিখোঁজ সাইদুলের মা দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা করলেও আসামীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এছাড়া মামলার প্রধান আসামী ঘটনার পর থেকে পলাতক থাকায় নিখোঁজ দুই যুবকের ব্যাপারে কোন তথ্যও পাওয়া যাচ্ছে না।

নিখোঁজ সাইদুল মৃধার মা রেজিয়া বেগম জানান, সাইদুল ও সোহেল উপজেলার সুতারপাড়া এলাকার চঞ্চল মোল্লার কাছে কাজ চেয়েছিল। গত ২০ এপ্রিল সকালে প্রতিবেশি সোহেল এসে সাইদুলকে জানায় চঞ্চল মোল্লার সহযোগি সাজ্জাদ মোল্লা তাদেরকে এখনই দেখা করতে বলেছে। এরপর দুই বন্ধু একসাথে বের হয়ে যায়। সেদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সাইদুল মোবাইলে জানায়, সে ও সোহেল মাওয়া আছে। রাতে ফিরবে না সকালে বাসায় আসবে। এরপর আর সাইদুলের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তাদেরকে বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে না পেয়ে সাইদুলের মা ২৩ এপ্রিল দোহার থানায় জিডি করেন। এর পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও এখনো হদিস মেলেনি দুই যুবকের। তার ছেলে ও ছেলের বন্ধু নিখোঁজের সাথে সাজ্জাদ মোল্লা ও চঞ্চল মোল্লা জড়িত বলে দাবি সাইদুলের মা’র। এ ঘটনায় থানায় জিডি হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত সাজ্জাদ মোল্লা পলাতক রয়েছে।

তিনি আরো জানান, থানায় মামলা না নেওয়ায় বাধ্য হয়ে উপজেলার সুতারপাড়ার সাজ্জাত মোল্লা ও চঞ্চল মোল্লার বিরুদ্ধে গত ৫ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও দোহার আমলী আদালতে সি.আর ১৬৬/২০২১ নং মামলা করেন তিনি। পরে আদালতের নির্দেশে দোহার থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়। মামলা নং-৭, তাং-৯/৯/২১ইং, ধারা ৩৬৪/১০৯/৫০৬ (২) দন্ডবিধি। রাজিয়া বেগম জানান আজ ৫ মাস হলো আমার পুলাডা নিখোঁজ। এখনো কেউ আমার পুলাডার সন্ধান দিতে পারলো না। প্রতিদিন অপেক্ষায় থাকি পুলাডা ফিরে আসবে কিন্ত আসে না।’ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দোহার থানার উপপরিদর্শক আল-নুর তারেক জানান, আসামীরা পলাতক রয়েছে তবে তাদেরকে গ্রেপ্তারে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

৫ মাসেও খোঁজ মেলেনি দোহারে নিখোঁজ দুই যুবকের

নিখোঁজ হওয়ার পাঁচ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো খোঁজ মেলেনি ঢাকার দোহার উপজেলার ঘাটা গ্রামের দুই যুবক সাইদুল মৃধা ও সোহেলের। সন্তানকে ফিরে পেতে দিনরাত কান্নাকাটি করছে তাদের মা। নিখোঁজ সাইদুলের মা দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা করলেও আসামীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এছাড়া মামলার প্রধান আসামী ঘটনার পর থেকে পলাতক থাকায় নিখোঁজ দুই যুবকের ব্যাপারে কোন তথ্যও পাওয়া যাচ্ছে না।

নিখোঁজ সাইদুল মৃধার মা রেজিয়া বেগম জানান, সাইদুল ও সোহেল উপজেলার সুতারপাড়া এলাকার চঞ্চল মোল্লার কাছে কাজ চেয়েছিল। গত ২০ এপ্রিল সকালে প্রতিবেশি সোহেল এসে সাইদুলকে জানায় চঞ্চল মোল্লার সহযোগি সাজ্জাদ মোল্লা তাদেরকে এখনই দেখা করতে বলেছে। এরপর দুই বন্ধু একসাথে বের হয়ে যায়। সেদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সাইদুল মোবাইলে জানায়, সে ও সোহেল মাওয়া আছে। রাতে ফিরবে না সকালে বাসায় আসবে। এরপর আর সাইদুলের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তাদেরকে বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে না পেয়ে সাইদুলের মা ২৩ এপ্রিল দোহার থানায় জিডি করেন। এর পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও এখনো হদিস মেলেনি দুই যুবকের। তার ছেলে ও ছেলের বন্ধু নিখোঁজের সাথে সাজ্জাদ মোল্লা ও চঞ্চল মোল্লা জড়িত বলে দাবি সাইদুলের মা’র। এ ঘটনায় থানায় জিডি হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত সাজ্জাদ মোল্লা পলাতক রয়েছে।

তিনি আরো জানান, থানায় মামলা না নেওয়ায় বাধ্য হয়ে উপজেলার সুতারপাড়ার সাজ্জাত মোল্লা ও চঞ্চল মোল্লার বিরুদ্ধে গত ৫ সেপ্টেম্বর বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও দোহার আমলী আদালতে সি.আর ১৬৬/২০২১ নং মামলা করেন তিনি। পরে আদালতের নির্দেশে দোহার থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়। মামলা নং-৭, তাং-৯/৯/২১ইং, ধারা ৩৬৪/১০৯/৫০৬ (২) দন্ডবিধি। রাজিয়া বেগম জানান আজ ৫ মাস হলো আমার পুলাডা নিখোঁজ। এখনো কেউ আমার পুলাডার সন্ধান দিতে পারলো না। প্রতিদিন অপেক্ষায় থাকি পুলাডা ফিরে আসবে কিন্ত আসে না।’ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দোহার থানার উপপরিদর্শক আল-নুর তারেক জানান, আসামীরা পলাতক রয়েছে তবে তাদেরকে গ্রেপ্তারে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: