প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

   
প্রকাশিত: ৬:২৯ অপরাহ্ণ, ১৪ অক্টোবর ২০২১

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া।

সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় কুমিল্লার ঘটনায় জড়িতদের উদ্দেশে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটেছে ইতোমধ্যে এটি তদন্ত হচ্ছে। ব্যাপকভাবে তদন্ত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অনেক তথ্য আমরা পাচ্ছি এবং অবশ্যই এই ধরনের ঘটনা যারা ঘটাবে তাদেরকে খুঁজে আমরা বের করবই। এটা প্রযুক্তির যুগ তাদেরকে খুঁজে বের করা যাবে এবং সে যেই হোক না কেন, যে ধর্মেরই হোক না কেন তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা অবশ্যই নেওয়া হবে। আমরা তা করেছি এবং করবো।’

দুর্গাপূজা উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) বিকেলে ঢাকেশ্বরী মন্দিরের কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু মানুষের মধ্যে দুষ্ট বুদ্ধিটা আছে। যখন একটা জিনিস খুব সুন্দরভাবে চলছে তখন সেটা নষ্ট করা। বাংলাদেশে যখন উন্নয়নের পথে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে সেই সময় এই যাত্রাটাকে ব্যাহত করা এবং দেশের মধ্যে সমস্যা তৈরি করা।’

তিনি বলেন, ‘যারা জনগণের আস্থা তৈরি করতে পারে না, বিশ্বাস অর্জন করতে পারে না, রাজনীতি নেই, কোনো আদর্শ নেই তারাই এই ধরণের কাজ করে। এটা তাদের একটা দুর্বলতা। আমরা যদি এই বিষয়ে সবাই সচেতন থাকি তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। এখানে সব ধর্ম-বর্ণ এক সঙ্গে বসবাস করবে এবং যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সার্বজনীন যতগুলো পূজামণ্ডপ আছে, সেটা নিয়ে কোনো অসুবিধা হয় না। অসুবিধা হয়ে যায় যখন আলাদা আলাদা অস্থায়ী মন্দির বসিয়ে পূজা হয়। তখনই কিছু লোক সুযোগ পায় সেখানে সমস্যা সৃষ্টি করতে। কাজেই এ ক্ষেত্রে আপনাদের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে নিয়ন্ত্রণ করা দরকার যে মোট কয়টা জায়গায় হচ্ছে। এটা কিন্তু, ভারতেও আছে, কলকাতায় আছে। সেখানে কিন্তু সরকারের অনুমোদন ছাড়া নতুন করে পূজামণ্ডপ করতে পারে না।’

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, ‘কিন্তু, আমাদের এখানে সে স্বাধীনতা আছে। আপনারা করতে পারেন। আমি চাইব আপনারাই পদক্ষেপ নিন। বিশেষ করে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ তাদের পক্ষ থেকে নীতিমালা থাকা দরকার। একটা নির্দেশনা থাকা দরকার যে কোথায় কতটা পূজামণ্ডপ হবে। সেটা যদি সীমিত আকারে থাকে তবে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিরাপত্তা দেওয়ার সুবিধা থাকে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘যেহেতু গতবার করোনার জন্য পূজা সীমিত আকারে হয়েছিল, এবারে উৎসাহ খুব বেশি। ১ হাজার ৯০৫টা বেশি পূজামণ্ডপ তৈরি হয়েছে। কাজেই আপনারা এ বিষয়টা দেখবেন।’

স্মৃতিচারণ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি আগে বিভিন্ন মন্দিরে যেতাম, ঘুরতাম, খেতাম। এখন আর প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর পারি না। আমি বের হলেই জ্যাম লেগে যায়। ঢাকেশ্বরী মন্দির ও রামকৃষ্ণ মিশনে যেতাম। এখন একটা বড় জেলে বন্দি আছি। ২০০৭ একটা ছোটো জেলে ছিলাম।’

এসময় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমি অনুরোধ করব, যেন যেখানে যেখানে পূজা হচ্ছে, প্রত্যেকে যেন সেখানে অন্তত নিরাপত্তার দিকটা দেখে এবং সরকারের সঙ্গে মিলে যেন শান্তিপূর্ণভাবে হয় সে ব্যবস্থা গ্রহণ করে।’

ফরমান/মস

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: