প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মোঃ এস হোসেন আকাশ

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত ১

   
প্রকাশিত: ৯:০৭ অপরাহ্ণ, ১৮ জুলাই ২০২২

ছবি - প্রতিনিধি

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় লিটন মিয়া (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আরও তিনজন গুরুতর আহত হয়েছে। তাদেরকে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত লিটন মিয়া পার্শ্ববর্তী পাকুন্দিয়া উপজেলার পুলেরঘাট মাইজহাটি গ্রামের মৃত সিরাজ মিয়ার ছেলে। আহতরা হচ্ছে, সুমন মিয়া, হান্নান ও মো. সুমন। ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে।

জানা যায়, রোববার (১৭ জুলাই) বনগ্রাম ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাদল মিয়ার ভাগিনা রিপনকে প্রতিপক্ষ মহিউদ্দিন গং মারধর করে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করে এবং কয়েক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। রোববার রাতে ওয়ার্ড সভাপতি বাদল মিয়া পার্শ্ববর্তী পুলেরঘাট বাজারে অন্যান্য সঙ্গীদের সাথে আড্ডা দেয়। অনেক রাত হয়ে যাওয়ায় একা একা বাড়ি ফিরতে ভীত ছিলেন। তিনি পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বার হাদিউল ইসলামসহ অন্যান্য সঙ্গীদেরকে বাড়ি পৌছে দেয়ার কথা বলেন। সঙ্গীরা তাকে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে ফেরার পথে মহিউদ্দিন গং এর বাড়ির নিকটে আসা মাত্র বাড়ির ভিতর থেকে তাদেরকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। মেম্বার মো. হাদিউল ইসলাম তার পরিচয় দিয়ে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করছে কেন জিজ্ঞাসা করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে তাদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। এ সময় লিটন মিয়াসহ তিনজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে কিশোরগঞ্জ ২৪০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাদেরকে ময়ময়নসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (১৮ জুলাই) সকালে লিটন মিয়ার মৃত্যু হয়।

এদিকে হামলার ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের মাঝে রাতভর ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং দোকানপাট ও বাড়িঘর ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এছাড়া ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে অপু, দিপু, মনির উদ্দিন, খোকন, নজরুল, মামুন ও পাপ্পু এই সাতজনকে আটক করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এসএম শাহাদত হোসেন বলেন, এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সাতজনকে আটক করা হয়েছে এবং বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে। জড়িত অন্যান্যদেরকে গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত আছে।

আশরাফুল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: