প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

শাহীন মাহমুদ রাসেল

কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজারের আলোচিত মোরশেদ হত্যা: প্রধান আসামীসহ ২ জনের আত্মসমর্পণ

   
প্রকাশিত: ৬:৩৬ অপরাহ্ণ, ২৭ জুলাই ২০২২

ইফতার পর্যন্ত বাঁচিয়ে রাখার আকুতির পরও জনসম্মুখে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় কক্সবাজার সদরের পিএমখালীর মোরশেদকে। আলোচিত এ হত্যা মামলার প্রধান আসামী আব্দুল মালেক ও ৩ নাম্বার আসামী কলিম উল্লাহ আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন।

বুধবার (২৭ জুলাই) দুপুরে কক্সবাজার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আলমগীর ফারুকীর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করে তারা। পরে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে প্রেরণ করে।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আমির হোসেন জানান, উচ্চ আদালতের নির্দেশে তারা আত্মসমর্পণ করে। কিন্তু আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাদেরকে কারাগারে পাঠিয়েছে। আসামীদের জামিন না মঞ্জুর করায় নিহত মোরশেদ বলীর পরিবারের পক্ষ থেকেও সন্তুষ্টি প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে আসামীরা আত্মসমর্পণের সময় চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গনে মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে আসামীপক্ষ ও নিহত মোরশেদ বলির পরিবারের লোকজন। এই ঘটনায় পুলিশ নিহত মোরশেদ বলীর ভাই মো. সাজ্জাদ ও মো. জাহেদ এবং একই এলাকার আরিফ উল্লাহ নামে তিনজনকে আটক করেছে আদালত প্রাঙ্গন থেকে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনিরুল গিয়াস জানিয়েছেন, আটক তিনজনই মোরশেদ বলীর পরিবারের সদস্য। চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের নির্দেশা অনুযায়ী আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, পানি সেচযন্ত্র ব্যবস্থাপনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় দুপক্ষের লোকজনের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলছিল। এর জেরে গত ৭ এপ্রিল চেরাংঘর ষ্টেশনে আওয়ামী লীগের কক্সবাজার সদর উপজেলা কমিটির সদস্য ও উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি আবদুল মালেক এবং পিএমখালী ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম আলালের নেতৃত্বে ১০ থেকে ১৫ জনের প্রতিপক্ষের একদল লোক তার ওপর হামলা চালায়।

‘সারা দিনের রোজায় বেশি ক্লান্ত, মারতে চাইলে ইফতারের পর মারিও।’ হামলার সময় মোরশেদ এমন কথা বলছিলেন বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। এরপরও মোরশেদকে মাটিতে ফেলে মারধর ও কুপিয়ে হামলাকারীরা পালিয়ে যান। পরে আহতাবস্থায় মোরশেদকে উদ্ধার করে স্থানীয়রা কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। এ সময় হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনায় ২৬ জনকে আসামী করে মামলা রুজু করা হয়।

নিহত মোরশেদ আলী কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নের মাইজপাড়ার মৃত ওমর আলীর ছেলে।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: