প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

জাহাঙ্গীর আলম ভুঁইয়া

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

তাহিরপুরে বন্যায় সড়কে ১৪০ কোটি টাকার ক্ষতি, চরম দুর্ভোগ

   
প্রকাশিত: ৯:১৬ পূর্বাহ্ণ, ২ আগস্ট ২০২২

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের তোড়ে ও সৃষ্ট বন্যায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় সড়ক ও জনপদ এবং অভ্যন্তরীণ এলজিইডির বিভিন্ন সড়কের ৫০কিলোমিটার সড়কের বুকে ভাঙন ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে উপজেলার সঙ্গে যানবাহনে মানুষজন চলাচল করতে গিয়ে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। এ যেন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা থেকে জেলা শহরের সঙ্গে সড়কপথে চলাচলের একমাত্র গুরুত্বপূর্ন তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়ক, তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়ক, বাদাঘাট-চানপুর-ট্যাকেরঘাট সড়ক, তাহিরপুর বাজার-শুভলারগাও সড়কসহ অভ্যন্তরিন সড়কে পানির তোড়ে ভেঙে যায়। প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই বেহাল সড়ক দিয়েই উপজেলা সদরে যাওয়া-আসা করতে বাধ্য হচ্ছে মানুষজন। দ্রুত মেরামত না হলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশংকা রয়েছে।

তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়ক দিয়ে চলাচলকারী টাকাটুকিয়া গ্রামে দেবল সরকার, রাহুল মিয়াসহ অনেকেই জানান, বন্যায় সড়ক যে ভাবে ভাঙ্গছে এতে করে পায়ে হেটে চলাচল ও কষ্টকর। কারন বেশির ভাগ সড়কের পাথর উঠেছে, গর্ত ও সড়কের দু পাশের মাটি সড়ে গেছে। মোটরসাইকেল ও টমটম দিয়ে চলাচল করলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা আছে।

টমটম চালক আরিফ মিয়া বলেন, আমরা যারা টমটম চালক আছি বন্যার পর সড়কের ব্যাপক ভাঙ্গনের ফলে যাত্রী নিয়ে চলাচল বন্ধ হবার পথে। জীবিকার তাগিদে এখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রী নিয়ে চলাচল করছি।

মটর সাইকেল চালক হান্নান মিয়া বলেন, বন্যার পর সড়ক দিয়ে যাত্রী পরিবহন এখন কমে গেছে। ভাঙ্গাচুরা সড়কের কারনে অনেকেই ভয়ে মটর সাইকেলে এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে চায় না। ফলে উপার্জন কমে গেছে।

তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুনাব আলী জানান, প্রতিদিনেই দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পর্যটকগন বিভিন্ন সাইজের গাড়ি নিয়ে উপজেলার আসছে। উপজেলা গুরুত্বপূর্ণ তাহিরপুর-বাদাঘাট ও তাহিরপুর-আনোয়ারপুর সড়কে জনদূর্ভোগ লাগবে দ্রুত মেরামত করা প্রয়োজন না হলে যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এলজিইডির তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী ইকবাল কবির বলেন, দুই দফা বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে গ্রামীণ রাস্তাঘাটের। উপজেলায় ৫০কিলোমিটার সড়ক ও কয়েকটি ব্রীজ ভেঙে ১শত ৪০কোটি টাকার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এই বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: