প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

আসাদুজ্জামান

গাইবান্ধা প্রতিনিধি

ডেপুটি স্পিকারের আসনে কে হচ্ছেন নৌকার কান্ডারী?

   
প্রকাশিত: ১০:১১ পূর্বাহ্ণ, ৩ আগস্ট ২০২২

জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার সদ্য প্রয়াত অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়ার আসনটি গত ২৪ জুলাই শূণ্য ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সংসদ সচিবালয়। নিয়মানুযায়ী গাইবান্ধা- ৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে আগামী ৯০ দিনের মধ্যে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে ফেসবুকে নির্বাচনী প্রচারণা ও হাটে, ঘাটে, মাঠে ও চায়ের দোকানে শুরু হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। কে হচ্ছেন নৌকার কান্ডারী, কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন এ নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ সূত্রে জানা গেছে, গাইবান্ধা -৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ৩ জন। তারা হলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন, ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জি.এম সেলিম পারভেজ ও সদ্য প্রয়াত অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে ফারজানা রাব্বী বুবলী।

জানা যায়, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ছিলেন মাহমুদ হাসান রিপন। তিনি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পাশাপাশি নির্বাচনী এলাকায় দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। এছাড়া তিনি সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে তৃণমুল নেতাকর্মীদের সাথে মিছিল মিটিং সমাবেশ করে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

এদিকে ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জি.এম সেলিম পারভেজ তিনিও মনোনয়ন প্রত্যাশী। তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই বার সাধারণ সম্পাদক ও দ্বিতীয় বারের মতো ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি।

অপরদিকে, ফারজানা রাব্বী বুবলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, তার স্বামী বিচারপতি খুরশীদ আলম সরকার। ফজলে রাব্বী মিয়ার মেয়ে হিসেবে তিনি বাবার উত্তরাধিকার দাবি করছেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফুলছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জি.এম সেলিম পারভেজ বলেন, আমি দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি। এর আগেও আমি দুই বার দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেছিলাম। এবারের উপ-নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করবো। আশা করছি মনোনয়ন পাবো। আমাকে নৌকা প্রতীক দিলে আমার বিজয় নিশ্চিত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের একজন নেতা মনোনয়ন বিষয়ে বলেন, যদি কাউকে ম্যানেজ করার বিষয় থাকে তাহলে হয়তো পরিবারের দিকে যেতে পারে। আবার আমরা যদি দীর্ঘমেয়াদী কৌশল অবলম্বন করি তাহলে তরুন কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে। আমাদের মনোনয়ন বোর্ডে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, গাইবান্ধা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়া গত ২২ জুলাই নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় (বাংলাদেশ সময় ২৩ জুলাই রাত ২ টায়) চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মরহুম ফজলে রাব্বী কে গত ২৫ জুলাই পারিবারিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে দাফন করা হয়।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: