সম্রাটের সহযোগী খালেদ জামিনে মুক্ত

   
প্রকাশিত: ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ, ২ সেপ্টেম্বর ২০২২

ফাইল ছবি

ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া জামিনে কারামুক্তি পেয়েছেন। তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি সম্রাটের ঘনিষ্ঠ সহযোগী। বৃহস্পতিবার (১ সেপ্টেম্বর) ঢাকার বিভাগীয় স্পেশাল জজ সৈয়দ কামাল হোসেন শুনানি শেষে জামিন মঞ্জুর করেন। এ নিয়ে তার বিরুদ্ধে হওয়া মোট সাত মামলাতেই জামিন পেলেন খালেদ।

এদিন আসামি খালেদের পক্ষে তার আইনজীবী জামিন আবেদন করেন। অন্যদিকে দুদকের আইনজীবী জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন। এর আগে তাকে আদালতে হাজির করা হয়। এ বিষয়ে দুদকের পাবলিক প্রসিকিউটর মীর আহমেদ আলী সালাম বলেন, দুদকের পক্ষ থেকে জামিনের বিরোধিতা করা হয়। তবে খালেদের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরা হয়, তিনি অসুস্থ। এর সপক্ষে চিকিৎসা সনদ অদালতে জমা দেওয়া হয়। আদালত শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুভাষ চন্দ্র ঘোষ বলেন, আদালতের জামিন সংক্রান্ত কাগজপত্র পাওয়ার পর যাচাই-বাছাই করা হয়। তার বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মামলার জামিন পেয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আর কোনো মামলা না থাকায় বৃহস্পতিবার রাত ৮ টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিজন সেল থেকে কারারক্ষীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশানের বাসা থেকে খালেদকে গ্রেপ্তারের পর ফকিরাপুল ইয়াংমেন্স ক্লাবে অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে নগদ ২৪ লাখ ২৯ হাজার টাকা এবং বিপুল পরিমাণ জুয়া খেলার সরঞ্জামাদী উদ্ধার ও ১৪২ জনকে আটক করা হয়। এরপর খালেদের বিরুদ্ধে সাতটি মামলা দায়ের করা হয়। এরমধ্যে ছয়টি মামলার অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে। শুধু মানি লন্ডারিং আইনের মামলায় তদন্ত এখনো শেষ হয়নি। তার বিরুদ্ধে চারটি মামলায় অভিযোগ গঠন করা হয়েছে।

নাঈম/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: