প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

এশিয়া কাপে ঝড় তোলা কে এই ওয়াজমা আইয়ুবি?

   
প্রকাশিত: ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

ছবি: সংগৃহীত

২০২২ সালের এশিয়া কাপে আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশের ম্যাচ চলাকালীন আফগানিস্তানের পতাকা ধরে গলা ফাটাতে দেখা গিয়েছিল এক তরুণীকে। নেটমাধ্যম তোলপাড় হয়ে যায় এই রহস্যময়ীর পরিচয় জানতে। রহস্যময়ী ওই যুবতীর নাম ওয়াজমা আইয়ুবি। এশিয়া কাপ চলাকালীন রাতারাতি প্রচারের আলোয় আসেন ওয়াজমা। তাঁর ছবিগুলিও নেটমাধ্যমে ভাইরাল হতে শুরু করে।

ওয়াজমাকে নিয়ে মাতামাতি শুরু হয় আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশের ম্যাচের পর থেকে। এই ম্যাচ চলাকালীনই দলের সমর্থনে লাফালাফি করার সময় একাধিক ক্যামেরাম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন ওয়াজমা। এশিয়া কাপ চলাকালীনই ‘মিস্ট্রি গার্ল’ হয়ে ওঠেন ওয়াজমা । ওয়াজমার বয়স ২৮ বছর। কর্মসূত্রে দুবাইয়ে থাকেন আফগানিস্তানের এই মেয়ে। ওয়াজমা দুবাইয়ের একটি প্রসাধনী সংস্থার মালিক।

চাকরি করতে দুবাই গিয়েছিলেন ওয়াজমা। কিন্তু ঠিক করেন কারও অধীনে নয়, কাজ করবেন স্বাধীন ভাবে। আর এই ভাবনা থেকেই নিজস্ব প্রসাধনী সংস্থা খোলার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। প্রসাধনী সংস্থার মালিক হওয়ার পাশাপাশি ওয়াজমা দুবাইয়ে পড়াশোনাও চালিয়ে যাচ্ছেন। খেলার প্রতি ভালবাসা ছাড়া হিন্দি সিনেমার প্রতিও গভীর ভালোবাসা রয়েছে ওয়াজমার। আফগান-সুন্দরীর ইচ্ছা বলিউডে অভিনয় করার। এ ছাড়াও ওয়াজমা পছন্দ করেন ঘুরে বেড়াতে। মোটরবাইকে চেপে এ দিক-ও দিক ঘুরে বেরানোর শখ তাঁর। পছন্দ করেন বিভিন্ন ধরনের বাইক চালাতেও।

ওয়াজমা এক জন সমাজকর্মী হিসাবেও কাজ করেন। দেশে থাকা বিভিন্ন বৈষম্যের বিরুদ্ধে বহু বার আওয়াজ তুলেছেন তিনি। এশিয়া কাপে সুপার ৪ ম্যাচের তিনটিতে হেরে বিদায় নেয় আফগানিস্তান। গত বৃহস্পতিবার ভারতের কাছে ১০১ রানে হেরে যায় মহম্মদ নবিদের দল। তবে তার পরও আফগানিস্তানের হয়ে গলা ফাটাতে দেখা গিয়েছিল ওয়াজমাকে।

গত বৃহস্পতিবারের ম্যাচের পর নেটমাধ্যমে আফগানিস্তানের পতাকা হাতে একটি ছবি শেয়ার করে ওয়াজমা জানান, তিনি অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও এই দিনের ম্যাচ দেখতে মাঠে আসেন। কারণ আফগানিস্তান ছাড়াও তিনি ভারতীয় দলের একনিষ্ঠ সমর্থক। টুইটারে শেয়ার করা এই ছবির ক্যাপশানে লেখা ছিল, এশিয়া কাপে দেশের নীল বাঘেদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আমি দেশের পতাকা হাতে হাজির হয়েছিলাম। আমার শরীর ভাল না থাকা সত্ত্বেও আমি খেলা দেখতে গিয়েছিলাম। কারণ আফগানিস্তান এবং ভারত, আমার প্রিয় দু’টি দল। এদের ম্যাচ দেখা থেকে আমি নিজেকে আটকাতে পারিনি। টুইটারে পোস্ট হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ১১ হাজার মানুষ এই ছবিটিতে লাইক করেন। এক দিনের মধ্যে এই ছবি ৪২৮ বার রিটুইটও করা হয়। সূত্র: আনন্দবাজার।

ইমদাদ/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: