প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

এম. সুরুজ্জামান

শেরপুর প্রতিনিধি

শেরপুরে পারিবারিক বাজেট সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

   
প্রকাশিত: ৫:৩০ অপরাহ্ণ, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

শেরপুরে স্বচ্ছতা, জবাবদিহীতা ও আমাদের মনোগঠন ব্যক্তি ও পরিবার শীর্ষক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে পারিবারিক বাজেট, আর্থিক ও সময় ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা এবং এ সংক্রান্ত একটি গাইড লাইন অনুশীলন করা হয়। নাগরিক প্ল্যাটফরম জনউদ্যোগ কমিটির আয়োজনে শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শেরপুর সরকারি কলেজ মিলনায়তনে এ মতবিনিময় সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ওপর পরিচালিত এক গবেষণায় জরিপের তথ্য উপস্থাপন করা হয়। জরিপে উঠে এসেছে দেশের ৯৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ নাগরিক দৈনন্দিন খরচের হিসাব লিখে রাখেন না। ৯৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ কোনও পরিকল্পনা ছাড়াই খরচ করেন। এছাড়াও ৮৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ নিম্ন আয়ের নাগরিক নিয়মিত কোনও সয়ই করেন না।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক ইসতিয়াক রায়হান বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইনস্টিটিউট ফর এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইইডি)’র সহায়তায় ২০২২ সালের ১৫ মার্চ থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত এ গবেষণাটি পরিচালনা করেন। এতে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও যশোরের ১৫০ জন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষ অংশগ্রহণ করেন। গত ২৬ জুন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ওই গবেষণা জরিপটির ফলাফল উপস্থাপন করেন। দৈনন্দিন নাগরিক জীবন ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে গবেষণা জরিপে উঠে এসেছে, ৯৯ শতাংশ জনগোষ্ঠী প্রতিদিনের কাজে কোনও রুটিন মেনে চলেন না। ব্যক্তিগত কাজের সময়ের ব্যবহার নিয়ে ৯০ ভাগই সন্তুষ্ট না। মাত্র ১০ ভাগ সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

জনউদ্যোগ শেরপুর কমিটির আহ্বায়ক শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সদস্য সচিব সাংবাদিক হাকিম বাবুল জরিপ রিপোর্টটি পাঠ করে শুনান এবং পরবর্তীতে গাইডলাইনটি উপস্থিত অংশগ্রহণকারীরা অনুশীলন করেন। মতবিনিময় সভায় জনউদ্যোগ কমিটির সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্য, যুব ও নারী ফোরাম সদস্য সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সংস্কৃতিকর্মী, সাংবাদিকসহ অর্ধশতাধিক সুধীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

অন্যান্যের মাঝে প্রেসক্লাব সভাপতি মো. শরিফুর রহমান, নারী নেত্রী আঞ্জুমান আরা যুথী ও আঞ্জুমান আলম লিপি, উদিচির জেলা সভাপতি তপন সারোয়ার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম আবু হান্নান, নৃত্য শিল্পী কমল চক্রবর্তী ও নৃগোষ্ঠী নেতা সুমন্ত দাস প্রমূখ আলোচনায় অংশ নেন।

শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমরা রাষ্ট্রের বাজেট নিয়ে চিন্তা করি, অপরের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতার নিয়ে মাথা ঘামাই সমালোচনা করি। কিন্তু আমরা কখনোও ব্যক্তি, পরিবারের বাজেট এবং নিজেদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহীতা নিয়ে খুব একটা সচেতন নই।

নারী নেত্রী আঞ্জুমান আরা যুথী বলেন, আমরা যে পারিবারিক বাজেট করিনা, তা কিন্তু নয়। আমরা অবশ্যই আয় বুঝে ব্যয় করে থাকি। কিন্তু অনেকক্ষেত্রে আকস্মিক ঘটনায় হিসাবে উলট-পালট হয়ে যায়। তবে আজকে যেভাবে ফরমেট অনুযায়ী আয়, ব্যয় ও সময়ের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে, সেটি অনুসরন করতে পারলে আশাকরি ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যাবে।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: