প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

ফেসবুকের উচিত রোহিঙ্গাদের ক্ষতিপূরণ: অ্যামনেস্টি

   
প্রকাশিত: ৭:১২ অপরাহ্ণ, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

ছবি - সংগৃহীত

মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অনলাইনে বিভ্রান্তি এবং ঘৃণামূলক বক্তব্য প্রচারের জন্য ফেসবুকের ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) অ্যামনেস্টি এ প্রতিবেদনে এ মন্তব্য করেছে।

অ্যামনেস্টি তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, ‘অনেক রোহিঙ্গা ফেসবুকের রিপোর্ট ফাংশনের মাধ্যমে রোহিঙ্গাবিরোধী কন্টেন্ট রিপোর্ট করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু তাতে কোনো ফল আসেনি। ফলে ফেসবুকে বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য মিয়ানমারের বিপুল সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছায়। অ্যামনেস্টি বলেছে যে, ২০২১ সালের অক্টোবরে প্রকাশিত ‘ফেসবুক পেপারস’ দেখায় যে ফেসবুকের নির্বাহীরা জানতেন যে সাইটটি জাতিগত সংখ্যালঘু এবং অন্যান্য গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়িয়ে দিয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং উন্নত অর্থনীতির দেশ ওইসিডি গ্রুপের রোহিঙ্গা প্রতিনিধিরা ইতোমধ্যে ফেসবুকের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করেছেন। মামলাগুলো ফেসবুকের দায়িত্বশীল ব্যবসায়িক আচরণের নির্দেশিকা অনুসারে হয়েছে বলে জানা গেছে। গত ডিসেম্বরে ক্যালিফোর্নিয়ায় দায়ের করা একটি মামলায়, ফেসবুকের মূল কোম্পানি মেটা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ১৫০ বিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ চাওয়া হয়েছে।

অ্যামনেস্টি বলেছে, মেটা রোহিঙ্গাদের ক্ষতিপূরণ দিতে অস্বীকার করেছে। এটি এমন একটি কোম্পানি যা মানবাধিকারের বাস্তবতা থেকে সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন। মানবাধিকার গোষ্ঠী ফেসবুককে মানবাধিকার বিরোধী উসকানিতে তাদের নজরদারি বাড়াতে আহ্বান জানিয়েছে। ফেসবুক, ইতিমধ্যে, ভুল তথ্যের চাপের প্রতিক্রিয়ায়, বিশেষ করে রাজনীতি এবং নির্বাচন সম্পর্কে তার মূল্যবোধ এবং কার্যক্রম পুনর্গঠন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গারা, প্রধানত মুসলিম সংখ্যালঘু, মিয়ানমারের সামরিক শাসকদের নিপীড়নের মুখে ২০১৭ সালে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। লাখ লাখ রোহিঙ্গা বর্তমানে বাংলাদেশে শরণার্থী শিবিরে বসবাস করছে। সূত্র – আল জাজিরা

আশরাফুল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: