প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

গ্যাঞ্জাম পার্টির ছিনতাইয়ের কৌশল ‘এই আমারে ধাক্কা দিলি ক্যান’

   
প্রকাশিত: ৫:৩৪ অপরাহ্ণ, ৫ অক্টোবর ২০২২

রাজধানীতে প্রতিনিয়ত বেড়েই চলছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। সম্প্রতি ‘গ্যাঞ্জাম’ সৃষ্টি করে ছিনতাইয়ের চেষ্টার অভিযোগে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) রাতে উত্তরা পশ্চিম থানার ১৩নং সেক্টরের ১৩নং রোড থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত দুই যুবকের নাম আল রাজু (২৫) ও সুমন খান (২৯)। গ্রেপ্তাররা রাতে পথচারী কিংবা গাড়িচালকদের সাথে পরিকল্পিতভাবে ঝগড়া লাগান। এরপর কৌশলে তাদের টাকা, পয়সা, মোবাইল, ল্যাপটপ ছিনিয়ে পালিয়ে যান বলে দাবি থানা পুলিশের।

তারা দীর্ঘদিন থেকে একই ভাবে ছিনতাই করতো বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ইচ্ছাকৃতভাবে ঝগড়া লাগিয়ে ছিনতাই করা হয় বলে স্থানীয়দের কাছে গ্রেপ্তাররা ‘গ্যাঞ্জাম পার্টি’ নামেই পরিচিত। এর আগে একই অভিযোগে দুটি মামলা আছে।

গ্রেপ্তারও হয়েছেন, জেলও খেটেছেন তারা।গ্রেপ্তার রাজু ঢাকার তুরাগ থানার ভাবনারটেক এলাকার নুর আলমের ছেলে। তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। অপর আসামি সুমন পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার রুস্তম আলী খানের ছেলে। এছাড়াও গ্যাঞ্জাম পার্টির মূল অভিযুক্ত রাজুর ৮-১০ জনের একটি গ্রুপ আছে। তারা রাতে উত্তরাসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় আড্ডা দেন। কোনো পথচারীকে একা পেলে তার সাথে একজন পরিকল্পিতভাবে ধাক্কা খেয়ে ‘এই আমারে ধাক্কা দিলি ক্যান’ বলে ঝগড়া লাগিয়ে দেয়। এ সময় বাকিরাও আশপাশ থেকে এসে তাকে মারধর শুরু করে। এরপর তার কাছে থাকা টাকা, পয়সা ও মোবাইল হাতিয়ে পালিয়ে যায়।

এছাড়া গভীর রাতে কোনো গাড়িচালককে একা দেখলেও এ গ্রুপের কেউ একজন ইচ্ছাকৃতভাবে গাড়ির সাথে ধাক্কা খেয়ে ‘এই আমাকে গাড়ি দিয়ে ধাক্কা দিলি ক্যান’ বলে ঝগড়া লাগিয়ে দেয়। এরপর মারধর করে সব হাতিয়ে নেয়। গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় একই কায়দায় রাজু ও সুমন ঝগড়া লাগায় লুৎফুর রহমান নামে স্থানীয় এক ব্যক্তির সঙ্গে। লুৎফুর রহমান রাত সাড়ে ১১টায় তার প্রাইভেট কার চালিয়ে আসছিলেন। হঠাৎই তার গাড়ির সামনে এসে রাজু বলে উঠেন, ‘আমাকে গাড়ি দিয়ে ধাক্কা দিলি ক্যান’। এ সময় তারা লুৎফুরকে মারধর করে টাকা, মোবাইল ছিনিয়ে নিতে চাইলে তিনি চিৎকার শুরু করেন। এ সময় পুলিশের টহল টিম তার চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে যায় ও দুজনকে আটক করে। স্থানীয়রা আগে থেকেই তাদের এই ‘গ্যাঞ্জাম’ কৌশল জানতো। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

রেজানুল/সা.এ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: