প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

আড়াইহাজারে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে কাঁচামাল ব্যবসায়ি নিহত

   
প্রকাশিত: ২:১০ অপরাহ্ণ, ৭ অক্টোবর ২০২২

প্রতীকী ছবি

জাকির হোসেন, আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) থেকে: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে কাঁচামাল ব্যবসায়ী মোমেন মিয়া (৩২) নামে এক ব্যাক্তি নিহত হয়েছে। তিনি উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের শ্রীনিবাসদী গ্রামের আফাজউদ্দিনের ছেলে এবং শালমদী বাজারের নিয়মিত কাঁচামাল ব্যবসায়ি। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে আড়াইহাজার-গাউছিয়া সড়কের ঝাউগড়া নামক স্থানে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

স্থানীয়রা জানান, ভোর ৪টার দিকে মোমেন মিয়া একটি অটো রিকশা যোগে গাউছিয়াতে কাঁচামালের জন্য যাচ্ছিলেন। ঝাউগড়া নামক স্থানে রাস্তায় বাঁশ ফেলে একদল সশস্ত্র ছিনতাইকারী তার গাড়ীর গতি রোধ করে গাড়িটি থামাতে বাধ্য করে। এ সময় মোমেন ও তার চালক গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে ছিনতাইকারীরা মোমেন মিয়াকে ধরে ফেলে এবং উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে তাকে ঘটনাস্থলেই হত্যা করে তার সঙ্গে থাকা টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। গাড়ি চালকের ডাক চিৎকারে আশে পাশের লোকজন জড়ো হয়ে মোমনের লাশ ঘটনাস্থলে পড়ে থাকতে দেখেন এবং কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে লাশটি উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

নিহত মোমেনের ভাগিনা ইব্রাহিম জানান, আমার মামা কাঁচা মাল আনার জন্য গাউছিয়া যাচ্ছিলেন। ভোর ৪টার তারা রাস্তায় ডাকাত কৃর্তক মামা মোমেনের আক্রান্ত হওয়ার সংবাদ পান। সঙ্গে সঙ্গে তারা ঘটনা স্থলে এসে মোমেনের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। নিহত মোমেন মিয়া ৩ পুত্র সন্তানের পিতা বলে জানান ইব্রাহিম।

মাহমুদপুর ইউনয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমানউল্লাহ আমান জানান, মোমেন তার পরিচিত। তিনি শালমদী বাজারের নিয়মিত কাঁচা মালের ব্যবসায়ি। তিনি জড়িত ছিনতাইকারীদেরকে চিহ্নিত করে এ হত্যাকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিৎ করার জন্য প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

আড়াইহাজার থানার ওসি আজিজুল হক হাওলাদার জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে আসামীদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: