প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

হাসান আল সাকিব

রংপুর প্রতিনিধি

চিড়া-মুড়ি-কম্বল নিয়ে গণসমাবেশে বিএনপির নেতাকর্মীরা

   
প্রকাশিত: ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ, ২৮ অক্টোবর ২০২২

খালেদা জিয়ার মুক্তি, নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ বিভিন্ন দাবিতে দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে গণসমাবেশ করছে বিএনপি। চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও খুলনায় গণসমাবেশের পর বিএনপির নজরে এবার উত্তরের জেলা রংপুর।শনিবার (২৯ অক্টোবর) রংপুরে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশের দিন ধার্য রয়েছে। এ উপলক্ষে নেতাকর্মীদের নানা প্রস্তুতিও নিতে দেখা গেছে। এরইমধ্যে পরিবহন ধর্মঘটের বিষয়টি মাথায় রেখে অনেকেই সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করেছেন।

এদিকে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশর দুই দিন আগে ৩৬ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘট ডেকেছে জেলা মোটর মালিক সমিতি। সড়ক-মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনের চলাচল বন্ধের দাবিতে শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) ভোর ৬টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলবে এ ধর্মঘট। যদিও ধর্মঘটের কারণ হিসেবে মহাসড়কে অবৈধ যান চলাচল বন্ধসহ কয়েকটি দাবির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। তবে বিএনপির নেতাদের অভিযোগ, ২৯ অক্টোবর রংপুরে বিএনপি’র সমাবেশ বাধাগ্রস্ত করতে, এই ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে। বগুড়া থেকেও রংপুর বিভাগের ১০টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে জেলার পরিবহন মালিকরা।

বগুড়া শহরের স্টেশন রোড এলাকায় সারি বেঁধে দাঁড়িয়ে আছে ৫০টিরও বেশি বাস। বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় বাসগুলো ছেড়ে যাওয়ার কথা রংপুরে বিএনপি সমাবেশস্থলের উদ্দেশে। দুপুর থেকেই এসব বাসে সিট নেওয়ার জন্য কর্মীর উপচে পড়া ভিড়। আগামীকাল শনিবার বিকেলে গণসমাবেশ হলেও ভোর থেকেই মাঠে থাকবেন তাঁরা। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের প্রতিকৃতি-সংবলিত গেঞ্জি পরিহিত কর্মীরা দল বেঁধে যাচ্ছেন সেখানে। গতকাল সন্ধ্যায় লালমনিরহাট থেকে ট্রেনে রংপুর স্টেশনে এসেছেন মিরাজুল ও সবুজের নেতৃত্বে ৬০-৭০ জন নেতাকর্মী। স্টেশনে রাতযাপনের পর শুক্রবার সকালে যাবেন সমাবেশস্থলে। জানালেন, বাস বন্ধের আশঙ্কা থেকে দু’দিন আগেই রংপুরে এসেছেন তাঁরা। এভাবে তাঁদের এলাকা থেকে আরও অনেকে আসছেন। স্টেশনে তাঁরা চিড়া-মুড়ি খেয়েই রাত পার করবেন। বাড়ি থেকে আসার সময় নিয়ে এসেছেন পানি, চিড়া ও কম্বল।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা থেকে রংপুরে পৌঁছেছেন রংপুর বিভাগীয় গণসমাবেশের দলনেতা বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও সংসদ সদস্য হারুন অর রশীদ। সমাবেশস্থল পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, তারা নাকি ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় খেলা দেখাবেন। আমরা তো খেলা দেখছি। আগামী ২৯ অক্টোবর রংপুরে আমরাও খেলা দেখাব। স্মরণকালের সবচেয়ে বড় গণসমাবেশ হবে এদিন। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণ হবে, সারা দেশের মানুষ বিএনপির সঙ্গে আছে।

নাঈম/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: