প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মো: মিজানুর রহমান

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

বিপন্ন চুয়াডাঙ্গার তাঁতশিল্প, অন্য পেশায় তাঁতিরা

   
প্রকাশিত: ১২:২৮ অপরাহ্ণ, ১৬ নভেম্বর ২০২২

কয়েক বছর আগেও চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার এরশাদপুর গ্রামে তাঁতশিল্প ছিল জমজমাট। হাতের তাঁতের খট খট শব্দে মুখরিত থাকতো গ্রামটি। কিন্তু বর্তমানে সুতার দাম বৃদ্ধি, কঠোর পরিশ্রমে কম মজুরি আর যান্ত্রিক তাঁতযন্ত্রের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে বাপ-দাদার পৈত্রিক পেশা বদল করছেন তাঁতিরা। কালের বিবর্তনে আজ বিলুপ্তির পথে আলমডাঙ্গা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী এ তাঁত শিল্প।

আলমডাঙ্গার এরশাদপুর গ্রামসহ ১৫-১৬টি গ্রামের কয়েক হাজার বাসিন্দা এক সময় তাঁত বুনে জীবিকা নির্বাহ করতেন। আগে ওই এলাকার প্রতিটি ঘরে ঘরে তাঁত থাকলেও বর্তমানে মাত্র ৩০-৪০ টি পরিবারে তাঁত রয়েছে। এরশাদপুর গ্রামের কয়েকজন মানুষ বাপদাদার পেশা টিকিয়ে রাখতে তাঁতের কাজ করেন। এ শিল্পের সাথে জড়িত অধিকাংশ তাঁতিসহ সংশ্লিষ্ট শ্রমিকরা বেকার হয়ে অন্য পেশায় জড়িয়ে পড়ছেন। তাঁতিরা কেউ রাজমিস্ত্রি, কেউ রাজমিস্ত্রির সহকারী, কেউ রিকশাভ্যান চালক, আবার কেউ মুদি দোকানে কাজ করছেন।

তাঁতীরা জানান, একসময় এরশাদপুর গ্রামের পাঁচ শতাধিক তাঁতি পরিবার ছিল। প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে তাঁত শিল্পের উপর নির্ভরশীল ছিল। এখানকার তৈরি লুঙ্গি, গামছা ও তোয়ালের ব্যপক চাহিদা ছিল। আলমডাঙ্গা রেলস্টেশনের পাশে তাঁতের তৈরি কাপড়ের বড় বাজার ছিলো। এখন শুধু গামছা তৈরি করে তাঁত শিল্পের অস্তিত্ব কোনো রকম টিকিয়ে রেখেছেন কেউ কেউ।

তাঁতিদের দুরাবস্থার কারণ সম্পর্কে তাঁতিরা জানান, কাঁচামাল ও সুতার মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে কাপড়ের উৎপাদন খরচ বেড়েছে। কিন্তু সে তুলনায় তাঁতের তৈরি কাপড়ের মূল্য বাড়েনি। সারাদিন কাজ করে ৪ পিছ গামছা তৈরি করে আয় হয় ৪০-৫০ টাকা। অন্যদিকে যন্ত্রচালিত তাঁতযন্ত্রের কাপড় বাজারে আসায় হাতের তাঁতের তৈরি কাপড়ের চাহিদা কমে গেছে। তাই সহজে কাপড়ের দামও বাড়ানো যায় না। এ কারণে অনেকেই হাতে চালানো তাঁত মেশিন কম দামে বিক্রি করে দিয়েছেন। অনেকেই বাড়িতে ফেলে রেখেছেন।

তাঁতি তসলিমা খাতুন (৪০) জানান, ‘আমি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে তাঁতের কাজ করি। এ কাজে তেমন লাভ হয়না। আমি মাঝে মাঝে সংসারের কাজের ফাঁকে ফাঁকে দিনে ৪টি গামছা তৈরি করি। সুতার দাম বেশি কিন্তু কাপড়ের দাম কম। এতে আমার সারাদিনে লাভ হয় মাত্র ৪০-৫০ টাকা’

গ্রামের ৬০ বছরের বৃদ্ধা তাঁতি খাদিজা খাতুন বলেন, ‘আমি দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে এ কাজের সাথে জড়িত। বর্তমানে তাঁতের কাজ করে সংসার টিকানো কঠিন। তাই বাড়ির পুরুষরা তাঁতের কাজ ছেড়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে। অতিতে তাঁতের কাজ করে অনেক লাভবান হয়েছি। কিন্তু এখন এ পেশায় থাকা অনেক কঠিন। বাড়ির মহিলারা কাজের ফাঁকে ফাঁকে তাঁতের কাজ করছে।’

গ্রামের ৬০ বছরের বৃদ্ধা তাঁতি জহুরা খাতুন বলেন, ‘ আমি দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে তাঁতের কাজ করছি। আগে লাভ বেশি হতো তখন তাঁতের কাজ ভালো ভাবে করতে পেরেছি। এখন সারাদিন হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করে ৩০-৪০ টাকা আয় হয়। বাধ্য হয়েই কাজ ছেড়ে দিতে হচ্ছে।

তাঁতি ইদ্রিস আলী বলেন, ‘আমরা তাঁতিরা বাধ্য হয়েই পেশা ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিচ্ছি। আগে তাঁতের কাজ করে যে পরিমান লাভবান হয়েছি এখন আর সম্ভব হয় না। তাঁতশিল্পকে টিকিয়ে রাখতে হলে তাঁিতদের আধুনিক প্রশিক্ষণ, আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং তাঁতিদেরকে সহজ শর্তে ঋণ প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।’

তাঁতি আব্দুল মান্নান বলেন, ‘তাঁতের পেশা ছেড়ে এখন রাজমিস্ত্রির কাজ বেছে নিয়েছি। তাঁতিদের সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করে এবং রঙ ও সুতা ভর্তূকি মূল্যে দেয় তাহলে তাঁত শিল্প টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে’।

এ পেশায় আয় কমে যাওয়ায় তাঁতীরা পেশা বদলে কেউ হয়েছেন কুলি-মজুর, রিকশাচালক, দিনমজুর, রাজমিস্ত্রী, মুদি দোকানী। বাড়িতে বাড়িতে অয়তন-অবহেলায় পড়ে আছে ঐতিহ্যবাহী তাঁতযন্ত্র। কেউ কেউ কম দামে বিক্রি করে দিচ্ছেন তাঁতযন্ত্র। হাতেগোনা কয়েকটি বাড়িতে নারীরা অবসরে তাঁত বুনে বাঁচিয়ে রেখেছেন ঐতিহ্যবাহী এ পেশা।

আলমডাঙ্গা কেন্দ্রিয় তন্তুবায় শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু মুছা বলেন, ‘আমাদের এলাকায় অতিতে অনেক মানুষ এই তাঁত পেশার মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করেছেন। বর্তমানে সুতা, রং ও কাঁচামালের দাম অধিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে মজুরী ও লাভ কম হওয়ার কারণে তাঁত শিল্প টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়ছে। তাই বাধ্য হয়েই অনেকে তাদের বাপ দাদার পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন। তাঁতী সম্প্রদায় এবং হাতের তাঁতের শিল্প এই এলাকা থেকে বিলীন হয়ে যাওয়ার দাঁড়প্রান্তে। সরকার যদি প্রণোদনা ও ভর্তূকির মাধ্যমে তাঁতিদের পাশে দাড়ান তাহলে এই শিল্পটাকে টিকিয়ে রাখা সম্ভব হতো’।

চুয়াডাঙ্গা বিসিক জেলা কার্যালয়ের উপ-ব্যবস্থাপক মো. সামসুজ্জামান বলেন, ‘চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় এক সময় প্রচুর তাঁতি ছিল। এখন তাঁতিরা বাধ্য হয়ে তাদের পেশা বদলে ফেলছে। যন্ত্রের তাঁতের সঙ্গে হাতের তাঁত পেরে উঠছে না। তাদের আধুনিক প্রশিক্ষণ গ্রহণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। তাঁতিরা যদি বিসিকের কাছে আসেন, তারা যদি কারিগরি ও আর্থিক সহায়তা চান, তবে বিসিক অবশ্যই পাশে থাকবে এবং তাদের যথাযথ সাহায্য সহায়তা করবে’।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: