প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

জহুরুল ইসলাম

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি

শাহজাদপুরে হয়রানীমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে গ্রামবাসীর বিক্ষোভ

   
প্রকাশিত: ২:৫২ অপরাহ্ণ, ১৬ নভেম্বর ২০২২

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর এলাকার বাড়াবিল গ্রামে পৌরসভার রাস্তা নির্মাণ নিয়ে নিরীহ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে জনৈক মোঃ নজরুল ইসলামের দায়েরকৃত হয়রানীমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে গ্রামবাসী বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বুধবার দুপুরে বাড়াবিল গ্রামে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

এলাকাবাসী জানায়, সম্প্রতি শাহজাদপুর পৌরসভার নকশা অনুযায়ী টেন্ডারের মাধ্যমে উপজেলার বাড়াবিল উত্তরপাড়া থেকে নারায়নদহ পর্যন্ত একটি ইট বিছানো রাস্তা নির্মাণ করে পৌর কর্তৃপক্ষ। নিজের সুবিধামতো রাস্তা নির্মিত না হওয়ায় পৌর কর্তৃপক্ষকে বাদ দিয়ে নিরীহ গ্রামবাসীকে দোষারোপ করে হয়রানীমূলক একাধিক মামলা দায়ের করেন একই গ্রামের আয়কর কর্মকর্তা মোঃ নজরুল ইসলাম গং।

এসব মামলায় প্রথমে গ্রামের নিরীহ ২১ জন ও পরে আরও ৮ জনকে আসামী করা হয়। এদিকে, গত বছরের ১১ সেপ্টেম্বর বিষয়টি নিরসনে গ্রামের প্রধানবর্গ বাদী বিবাদী উভয় পক্ষকে নিয়ে মিমাংসার উদ্যোগ নেন। কিন্তু, বাদী নজরুল ইসলাম গং উক্ত সালিসে অনুপস্থিত থাকায় হয়রানীমূলক মামলার বিষয়টির সুরাহা সম্ভব হয়নি। উপরন্তু, নজরুল ইসলাম গং বহিরাগত কিছু ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দ্বারা নিরীহ গ্রামবাসীর ওপর নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন ও নির্যাতন করে আসছে বলেও গ্রামবাসী অভিযোগ করে।

এ বিষয়ে হয়রানীমূলক মামলার প্রধান বাদী মোঃ নজরুল ইসলামের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে এ সকল অভিযোগ অস্বীকার করে, ‘গ্রামবাসীরাই পৌরসভার রাস্তা নির্মাণ করেছে এবং আমার বাড়িঘর ভাংচুর করেছে’ এমন উদ্ভট ও মিথ্যাচার বক্তব্য প্রদান করেন।
এ ব্যাপারে শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র মনির আক্তার খান তরু লোদী বলেন, পৌরসভার বিধি মেনে নির্দিষ্ট নকশা অনুযায়ী রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছে।

অন্যদিকে, এদিন দুপুরে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা হয়রানীমূলক এ মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবীতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। বিক্ষোভ শেষে গ্রামবাসীর মধ্যে মোঃ বাবু, মোঃ শামসুল ফকির, হাজী আব্দুর রশিদ, বাচ্চু সরকার, আব্দুল কুদ্দুস জমিদারসহ অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এ মিথ্যা মামলার কারণে আমরা স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারছি না। নানা আতংকে আমাদের দিন কাটছে। আমরা এর সুবিচার চাই।’

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: