প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

ইয়ানুর রহমান

যশোর প্রতিনিধি

প্রধানমন্ত্রীর আগমন ঘিরে যশোর শহরে উৎসবের আমেজ

   
প্রকাশিত: ১১:২০ পূর্বাহ্ণ, ২৪ নভেম্বর ২০২২

ছবি - সংগৃহীত

দীর্ঘদিন পর আজ (বৃহস্পতিবার) যশোরে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যশোর শহরের শামস-উল হুদা স্টেডিয়ামে এক জনসভায় বক্তব্য দেবেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে উৎসবের শহরে পরিণত হয়েছে যশোর। যশোর জেলা প্রশাসন ও দলীয় সূত্র জানিয়েছে, আজ সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হেলিকপ্টারে যশোর মতিউর রহমান বিমানঘাঁটিতে এসে নেমেছেন। যশোর বিএএফ একাডেমিতে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ পরিদর্শন মঞ্চে উপস্থিত হয়েছেন।

জানা গেছে, বেলা ২টা নাগাদ যশোর শামস্–উল হুদা স্টেডিয়ামে জনসভায় যোগ দিয়ে ভাষণ দিবেন প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় এ সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সভামঞ্চের সামনে জায়গা পেতে সকাল ৯টা থেকেই যশোর জেলার ৮ উপজেলাসহ আশেপাশে পাশের জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে নেতাকর্মীরা আসছেন। অনেকে ব্যাগে করে দুপুরের খাবারও নিয়ে এসেছেন। রং-বেরংয়ের গেঞ্জি পরে আর লাল সবুজ শাড়ি পড়ে নেতাকর্মীরা যশোরের বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও আশেপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থল যশোর স্টেডিয়ামে আসতে শুরু করেছেন।

এ ছাড়া স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ সমর্থকদের ছবি সম্বলিত গেঞ্জি পরিহিত নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে জনসভাস্থলে জড়ো হতে শুরু করেছেন। ব্যানারসহ মাথায় ব্যান্ড লাগানো নেতাকর্মীদের অনেকের হাতে শেখ হাসিনা ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রহমানের প্ল্যাকার্ডও বহন করছেন।

মণিরামপুর থেকে জনসভায় আসা সাব্বির আহমেদ নামের একজন বলেন, ‘অনেকদিন পর আজ প্রধানমন্ত্রী আজ যশোরে আসছেন। তাঁকে দেখতে বহু মানুষ যাবে; তার বক্তব্য শুনবে। আমিও এসেছি। আসলে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে দেশে উন্নয়ন হয়। বিশেষ করে সাধারণ মানুষের অনেক উপকার হয়। তার বিকল্প নেই। আমরা আগামীতেও তাঁকে চাই।’

মাগুরা থেকে রাজেন শেখ বলেন, ‘আমাদের এলাকা থেকে ব্যাপক মানুষ এখানে এসেছেন। রাতেই যশোর শহরের একটি স্কুলে ছিলাম। আজ জনসভায় প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শুনব। দেখা যাক তিনি বৃহত্তর যশোরবাসীকে কী উপহার দেন। যদিও এই অঞ্চলের মানুষেন জন্য উনি এরই মধ্যে অনেককিছু করেছেন।’

এ প্রসঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর এবারের জনসভা হবে স্মরণকালে সেরা।এই জনসভা শুধু স্টেডিয়ামেই হবে না; গোটা যশোর শহরই জনসভাস্থলে পরিণত হবে। এজন্যে টাউন হল মাঠসহ বিভিন্ন জায়গায় এলইডি বড় স্ক্রিন দেওয়া হয়েছে। ওই স্ক্রিনে প্রধামন্ত্রীর ভাষণ সরাসরি দেখানো হবে। খুলনা বিভাগের সাতটি জেলা থেকে কয়েক হাজার বাস আসবে। ওইসব বাস রাখার জন্যেও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ নির্ধারণ করা হয়েছে। আমরা আশা করছি, আট লাখের বেশি মানুষ জনসভায় যোগ দেবেন।’

আশরাফুল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: