মোঃ শাহিন আলম

কু.বি. প্রতিনিধি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন নিয়ে হট্টগোল

   
প্রকাশিত: ১:১০ অপরাহ্ণ, ১ ডিসেম্বর ২০২২

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে ভোটগ্রহণকে কেন্দ্র করে হট্টগোল সৃষ্টি করেছে ওমর-জাহিদ গ্রুপ এবং সাইদুল-মুর্শেদ গ্রুপ৷ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী পক্ষে তারা ভোট দিতে কেন্দ্রে আসলেও নির্বাচনে যারা অংশ নেয়নি তারা বাঁধার সৃষ্টি করেন। তাদের দাবি, নির্বাচন কোথায় অনুষ্ঠিত হবে সে-সম্পর্কে কিছুই জানে না পক্ষটি।

জানা যায়, এবারের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু পরিষদের একাংশ সাইদুল আল আমিন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মুর্শেদ রায়হানের অংশটি নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। অন্যদিকের সভাপতি কাজী ওমর সিদ্দিকী ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) কাজী জাহিদ হাসান প্রথম থেকেই নির্বাচন কমিশন গঠন ও দিন তারিখ নিয়ে বিরোধিতা করে আসছিলেন।

ওমর-জাহিদ গ্রুপের নেতাদের দাবি, নির্বাচন কমিশন কখন ভোট কেন্দ্র পরিবর্তন করছে আমরা জানি না। নির্বাচন পূর্বে যেমন শিক্ষক লাউঞ্চে অনুষ্ঠিত হতো, এবারও হবে।

এদিকে লাউঞ্জে নির্বাচন না অনুষ্ঠিত করার বিষয়ে নির্বাচন কমিশনারদের ভাষ্য, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লাউঞ্জের ব্যাপারে অনুমতি চেয়েছি। কিন্তু প্রশাসন আমাদের অনুমতি দেয়নি। তাই এখানে নির্বাচন আয়োজন করতে হয়েছে। প্রশাসন যদি আমাদেরকে অনুমতি দিত তাহলে আমরা শিক্ষক লাউঞ্জে নির্বাচন নেওয়ার ব্যবস্থা করতাম।

নির্বাচনের কেন্দ্রের বিষয়ে ভোটার জানেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে কমিশন জানান, আমরা রাতে সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধানদের অবগত করেছি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক ড. জি এম মনিরুজ্জামান বলেন, আমরা সুষ্ঠু পরিবেশ পেলে নির্বাচন শুরু করব। নির্বাচন শুরু হওয়ার আগে শিক্ষকদের একটি পক্ষ বাধা দেয়। পরিবেশ পেলে আমরা নির্বাচন চালিয়ে যাব। কারা নির্বাচনে বাধা দিচ্ছে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, প্রক্টর সমর্থিত গ্রুপ (ওমর-জাহিদ) নির্বাচনে বাধা দিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, ভোট গ্রহণ সকাল ৯ থেকে ১ পর্যন্ত শুরু হওয়ার কথা থাকলেও হট্টগোলের কারণের একটি ভোটও নিতে পারেননি কমিশন। একপক্ষ (সাইদুল-মুর্শেদ) ভোটের জন্য দাঁড়িয়ে থাকলেও অপরপক্ষটি (ওমর-জাহিদ) দরজা অবরোধ করে রেখেছে৷

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: