প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

সোহেল রানা

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

তাড়াশে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ৯ সদস্যের লিখিত অভিযোগ

   
প্রকাশিত: ১২:২২ পূর্বাহ্ণ, ৭ ডিসেম্বর ২০২২

সিরাজগঞ্জের তাড়াশের মাধাইনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. হাবিলুর রহমান হাবিবের বিরুদ্ধে এলজিএসপি, ৪০ দিনের কর্মসূচি, দরিদ্রদের মাঝে ভিজিডির কার্ড দেওয়ার নামে অর্থ আদায়সহ ইউপি সদস্য এবং সেবা প্রত্যাশীদের সাথে অসদাচারণের অভিযোগ উঠেছে।

এ দিকে এ সকল ঘটনার প্রতিকার চেয়ে ওই ইউনিয়নের ৯ জন নির্বাচিত ইউপি সদস্য গত সোমবার তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. মেজবাউল করিম বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ৭ নং মাধাইনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. হাবিলুর রহমান হাবিব নির্বাচিত হওয়ার পর শপথ নিয়েই আর্থিকসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে ইউনিয়নের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে অর্থ লোপাট ও টাকার বিনিময়ে সরকারী সহযোগিতার কার্ড বিক্রির অভিযোগও তাঁর বিরুদ্ধে রয়েছে। লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, চেয়ারম্যান মো. হাবিলুর রহমান হাবিব মাধাইনগর ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দকৃত টিআর, কাবিটার অধিকাংশ টাকা কাজ না করেই আত্মসাত করেছেন।

এ ছাড়া এলজিএসপির বরাদ্দকৃত টাকা ইউপি সদস্যদের সাথে পরামর্শ না করে নিজের ইচ্ছা মতো নামমাত্র কাজ করে বেশির ভাগ টাকা আত্মাসত করেছেন। পাশাপাশি চলমান অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি) প্রকল্পের কাজ দেওয়ার নাম করে শ্রমিকদের কাছ থেকে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা অগ্রিম ঘুষ আদায় করেছেন। এমন অভিযোগও তাঁর বিরুদ্ধে রয়েছে।

আবার তাঁর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়েছে ভিজিডি কার্ড দেবার নামে দরিদ্রদের কাছে তাঁর ঘনিষ্ট লোকদের মাধ্যমে কার্ড প্রতি ৫ হাজার টাকা করে আদায় করে নিয়েছেন। আর ভিজিডির কার্ড বিতরণে সকল ইউপি সদস্যদের বাদ দিয়ে তিনি নিজেই টাকার বিনিময়ে কার্ডধারীদের নির্বাচিত করছেন। এতে ৯ জন সদস্য প্রতিবাদ জানিয়ে ওয়ার্ড প্রতি ভিজিডির কার্ড ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে দরিদ্রদের চিহিৃত করে তা বিতরণের দাবী জানান। আর এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ইউনিয়ন চেয়ারম্যান একজন ইউপি সদস্যকে পরিষদে তাঁর অফিস কক্ষে লাঞ্ছিত করেন।

এ ছাড়া তিনি পরিষদে অফিস কক্ষে বসে সদস্যদের অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ ও হুমকি-দামকি প্রদান করেন বলে ইউপি সদস্যরা অভিযোগ করেছেন। আর এখানেই শেষ নয়, চেয়ারম্যান মো. হাবিলুর রহমান হাবিব ইউনিয়ন পরিষদে কাজ করতে আসা বিভিন্ন গ্রামের সেবা প্রতাশীদের সাথেও দুর্ব্যহার করে থাকেন।

এতে করে মাধাইনগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত ইউপি সদস্য মো. মোক্তার হোসেন, শ্রী মিলন চন্দ্র সরকার, মো. শফিকুল ইসলাম, মো. রফিকুল ইসলাম, মো. আলআমিন, মোছা. শাহিনা খাতুন, আব্দুল মান্নান, মো. আব্দুল কাশেম ও মোছা. চায়না খাতুন এ সকল বিষয়ের প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁরা জানিয়েছেন ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুলোর তদন্ত করে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে অভিযোগে স্বাক্ষর করা ৯ জন সদস্য অনাস্তা আনবে।

অবশ্য মাধাইনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. হাবিলুর রহমান হাবিব তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ গুলো অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, ইউপি সদস্যদের ভাগ বাটোয়ারা মেনে না নেওয়া তাঁরা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। তবে এখন তাঁরা দৌড়াচ্ছেন। আর দৌড়াতে দৌড়াতে ক্লান্ত হয়ে এক সময় আমার কাছেই ফিরে আসতে হবেই।

তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মেজবাউল করিম লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যদের লিখিত সকল অভিযোগ গুলো তদন্ত করা হবে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: