একটি স্বনির্ভরশীলতার গল্প

প্রকাশিত: ০৮:২৭ পূর্বাহ্ণ, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭

মোহাম্মদ ইয়াকুত আলী একজন সফল খামারী। ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি নিয়ে সরকারি চাকরির পেছনে না দৌড়ে আত্মকর্মসংস্থান তৈরিতে নামেন আজ থেকে ৪ বছর আগে। পৈত্রিক ৯ একর জমিতে শুরু করেন মাছ ও সবজি চাষ। ৮ একর জমিতে ছোট বড় ৬টি পুকুরে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রজাতির মাছ আর ১ একর জমিতে রয়েছে তার সবজি খামার।

মৎস্য খাত থেকে বছরে প্রায় ১০ লাখ এবং সবজি থেকে ২ লাখ টাকা আয় করছেন উচ্চ শিক্ষিত যুবক মোহাম্মদ ইয়াকুত আলী। এসব প্রকল্পের মাধ্যমে শুধু যে তিনি নিজে স্বনির্ভর হচ্ছেন তা নয়, তার খামারে প্রতিদিন কাজ করছেন গ্রামের ৬ জন দরিদ্র শ্রমিক। দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে কাজ করে তারাও তাদের পরিবারে স্বচ্ছলতা এনেছেন, এমটাই জানালেন হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলার সাতকাপন ইউনিয়নের ভেড়াখাল গ্রামের মোহাম্মদ ইয়াকুত।

এ ব্যাপারে ইয়াকুত আলী বলেন, ৪ বছর পূর্বে শুরু করা মাছ চাষে প্রথম বছর আমার তেমন একটা লাভ না হলেও পরবর্তী বছর থেকে বার্ষিক ১০ লক্ষ টাকা আয় হচ্ছে। তাছাড়া আরও ১ একর জায়গায় সবজি চাষ করছি। সেখানে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রজাতির সবজি যেমন- আলু, সিম, ডেরস, বেগুন, টমেটো ইত্যাদি চাষ করে বছরে আমার প্রায় ২ লক্ষ টাকা আয় হচ্ছে। এভাবে দুইটি প্রকল্প থেকে আমার বছরে কমপক্ষে ১২ লক্ষ টাকা আয় হচ্ছে। তাছাড়াও আমার বাড়িতে বায়োগ্যাস প্লান্টের মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা গ্যাসের ব্যবস্থা করেছি। বসতবাড়িতে বিভিন্ন প্রজাতির ফলের গাছ রোপন করে বার মাস ফল উৎপাদন করছি। এসব ফল নিজের পরিবারের সদস্যদের চাহিদা মিটিয়ে বাজারে বিক্রিও করছি। মৎস্য চাষ প্রকল্পে প্রথম দিকে যে সময় দিতে হতো এখন আর আমার তেমন একটা সময় দিতে হয় না। শ্রমিকরা নিয়মিত কাজ করে চলছেন। আমি মাঝে মাঝে তদারকি করি। এ অবস্থায় গত এক বছর পূর্বে মিরপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে প্রভাষক হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেছি।

তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে শিক্ষার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। সে হিসেবে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মসংস্থান বাড়েনি। চাইলেই একটি শিক্ষিত ছেলে কোন প্রতিষ্ঠানে চাকুরিতে যোগদান করতে পারছে না। পদ সংখ্যার চেয়ে প্রার্থী কয়েক গুণ বেশি থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এ কারণে আমার কাছে মনে হল চাকরি পাওয়ার আশায় সময় নষ্ট না করে স্বনির্ভর হওয়ার রাস্তা খোজাটা অনেক ভাল। আমি চাই আমার মতো এলাকার শিক্ষিত বেকার যুবকরা চাকরি খুঁজতে গিয়ে সময় নষ্ট না করে মৎস্য চাষের মতো লাভজন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ুক। আমি তাদের সব রকম পরামর্শ ও সহযোগিতা করতে আগ্রহী। বেকার যুবকরা নিজের মেধা ও শ্রম দিয়ে স্বনির্ভর প্রতিষ্ঠান গড়ে তুললে যেমন নিজে সাবলম্বী হবে তেমনি অনেক গরিব অসহায় মানুষেরও কর্মসংস্থান হবে।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: