প্রচ্ছদ / বিনোদন / বিস্তারিত

সম্পাদনা: হৃদয় আলম

ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর

বিয়ের বাড়ির নাচই শ্রীদেবীর মৃত্যুর কারণ?

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ২৩:২২:০০

শ্রীদেবী কাপুর একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী যিনি তামিল, তেলুগু, হিন্দি, মালয়ালম এবং কিছু সংখ্যক কন্নড় চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। তিনি হিন্দি চলচ্চিত্রে প্রথম নারী সুপারস্টার বিবেচিত হন।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ দুবাইয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন তিনি। রবিবার সকালে যেন কিছুতেই খবরটি বিশ্বাস করতে চাইছিলেন না দেশটির মানুষজনের। সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট, হ্যাঁ, শ্রীদেবীর মৃত্যুর জন্য এটাকেই কারণ বলা হচ্ছে। কিন্তু কেন এই আচমকা কার্ডিয়াক অ্য়ারেস্ট? এর কারণ কেউই ঠিক করে বলতে পারছেন না। তারপরে শ্রীদেবীর হৃদরোগ সম্পর্কিত কোনও পুরনো মেডিক্যাল রেকর্ডও নেই।

এই পরিস্থিতিতে একটা সম্ভাবনা মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। মৃত্যুর এই সম্ভাব্য কারণ সামনে এসেছে একটি ভিডিও-র জন্য। এই ভিডিওটি দুবাইয়ে বিয়ে বাড়ির অনুষ্ঠানের। এই বিয়ে বাড়িতে যোগ দিতে দুবাই গিয়েছিলেন শ্রীদেবী। ভিডিওটি শনিবার রাতের। বিয়ের রিসেপশনে পাঞ্জাবি গানের সঙ্গে নাচ করেছিলেন শ্রীদেবী।

জানা গেছে, এই নাচের অনুষ্ঠানের পরই শ্রীদেবী স্বামী বনি কাপুর ও ছোট মেয়ে খুশিকে সঙ্গে করে হোটেলে ফেরেন। প্রায় ঘণ্টাখানেক নাচের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে যথেষ্টই ক্লান্ত ছিলেন শ্রী। পরিবার সূত্রে খবর তিনি ঘেমেও ছিলেন।

তবে, শরীরে কোনও অস্বস্তি নিয়ে কোনও অভিযোগ করেননি। হোটেলে ফিরে বাথরুমে যান শ্রীদেবী। আর সেখানেই তিনি অসুস্থ হয়ে বাথরুমের মেঝেতে পড়ে যান। পরে বাথরুমের দরজা ভেঙে তাঁকে বাইরে বের করা হয়।

হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় শ্রীদেবীর। হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে মৃত্যু হয়েছে বলিউড অভিনেত্রীর। চিকিৎসক মহলের অবশ্য দাবি, সামান্য নাচা-নাচিতে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম। যদি হৃদযন্ত্রে আগে থেকে কোনও সমস্যা না থাকে তাহলে নাচের জন্য কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম।

তবে, রোগী ডায়াবেটিস বা হাইপার টেনশনে আক্রান্ত থাকলে এমন সাডেন কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বনি কাপুরের পরিবারের দাবি, শ্রীদেবীর এমন কোনও শারীরিক সমস্যা ছিল না।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: