প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

শাহাদাত হোসেন রাকিব

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

মন্ত্রীসভায় অনুমোদন

মন্ত্রী-সচিবরা পাবেন ৭৫ হাজার টাকার মোবাইল

২১ মে, ২০১৮ ১৪:১০:০০

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সচিবরা পাবেন ৭৫ হাজার টাকা মোবাইল সেট। যেহেতু ভালো অ্যান্ড্রয়েড সেট ক্রয় করতে কমপক্ষে ৭৫ হাজার টাকার নিচে সম্ভব নয় তাই তাদের জন্য এ টাকা বরাদ্দ দিয়ে একটি আইনের খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রীসভা।

প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ সংক্রান্ত ‘সরকারি টেলিফোন, সেলুলার, ফ্যাক্স ও ইন্টারনেট নীতিমালা-২০১৮’ এর খসড়া অমুনোদন দেয়া হয়েছে।

সোমবার (২১ মে) সচিবালয়ে বৈঠক পরবর্তী ব্রিফিং এ মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মাদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা ২০০৪ সাল থেকে ছিল। নীতিমালাটি সংশোধন করে আইন আকারে করা হচ্ছে। নীতিমালায় সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের মোবাইল বরাদ্দের সুযোগ ছিল না। এ আইনে তা যুক্ত করা হচ্ছে। তবে এখনই ঠিক করা হয়নি তাদের কত টাকা মূল্যের মোবাইল সেট দেওয়া হবে। পরবর্তীতে এ আইনের সাথে তা যুক্ত করা হবে।

শফিউল আলম বলেন, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সচিবদের জন্য মোবাইল বিল নির্ধারিত নয়। পোস্ট-পেইড পদ্ধতিতে সরকারি কোষাগার থেকে তাদের মোবাইলের মাসিক বিল পরিশোধ করা হবে। তবে অতিরিক্ত সচিব, যুগ্ম সচিব ও উপ সচিবদের জন্য মোবাইল বিল বাড়ানো হয়েছে এ আইনে। আগে তাদের প্রতি মাসে বিল বাবদ প্রদান করা হতো ৬০০ টাকা। এখন তা বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৫০০ টাকা। তবে এ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের মোবাইল সেট প্রদান করবে না সরকার।

এর আগে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী ও সচিবদের জন্য মোবাইল ক্রয়ের জন্য বরাদ্দ ছিল ১৫ হাজার টাকা। তা বাড়িয়ে করা হলো ৭৫ হাজার টাকা। যোগ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

আজকের মন্ত্রিসভায় ‘হাউজিং এ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইন্সটিটিউট আইন ২০১৭’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুামোদন দেওয়া হয়েছে। আইনটি ১৯৭৫ সালের একটি আইন। এটিকে বাংলায় রূপান্তর করা হয়েছে। তবে পরিবর্তিত ৬ ধারায় বলা হয়েছে এ আইনে ইন্সটিটিউট পরিচালনার জন্য একটি পরিষদ থাকবে। পরিষদের প্রধান থাকবেন গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী। ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকবে ঐ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রী। তবে সদস্য সচিব থাকবেন মন্ত্রণালয়ের সচিব।

বিডি২৪লাইভ/এএইচআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: