আরমান হোসেন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

জাসদের আরেক অংশ নিবন্ধন পাবে কি?

১৩ আগস্ট, ২০১৮ ০০:৪৯:১৯

আগ্রহী দলগুলোকে নিবন্ধন অযোগ্য জানিয়ে দেওয়ার পর বাংলাদেশ জাসদ দলের পুনর্বিবেচনা আবেদন আমলে নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। দলটিকে নিবন্ধন দিতে এখন মাঠ পর্যায়ের অফিস ও কমিটি তদন্ত চলছে।

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পৌনে একশ’টি দল নিবন্ধন পেতে আবেদন করে নির্বাচন কমিশনে। ৭ মাস ধরে আবেদন যাচাই-বাছাই ও প্রাথমিকভাবে টিকে থাকা দলগুলোর দলিলাদি পর্যালোচনা করে নিবন্ধন অযোগ্য বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু শেষ মুহুর্তে বাংলাদেশ জাসদ নিবন্ধনযোগ্য কিনা তা পুনরায় যাচাই করা হচ্ছে।

নতুন দল নিবন্ধনের জন্য গত বছরের ৩০ অক্টোবর দলগুলোর কাছে আবেদন আহ্বান করে ইসি। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ৭৬টি দল আবেদন করে। নির্বাচনী রোডম্যাপ অনুযায়ী এপ্রিলের মধ্যে তা শেষ হওয়ার কথা ছিল।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু নেতৃত্বাধীন জাসদে ভাঙনের পর আলাদাভাবে সক্রিয় রয়েছে জাসদের অন্য অংশটি। শরীফ নুরুল আম্বিয়া ও নাজমুল হক প্রধানের নেতৃত্বাধীন এই অংশ বাংলাদেশ জাসদ নামে নিবন্ধন চাইছে।

জাতীয় সংসদে দুজন সংসদ সদস্য থাকার পরও বাংলাদেশ জাসদকে নিবন্ধন না দিলে নির্বাচন কমিশন প্রশ্নবিদ্ধ হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন দলটি। হাতি অথবা আনারস প্রতীক চেয়েই আবেদন করেছে দলটি।
রোববার নিবন্ধন যাচাই-বাছাই কমিটির দায়িত্বশীল ইসির উপ সচিব আব্দুল হালিম খান বলেন, যে ৭৬টি দল আবেদন করেছিল শেষ পর্যন্ত সবাইকে আমরা ‘না’ করে দিয়েছি। কিন্তু বাংলাদেশ জাসদের একটি আবেদন পুনর্বিবেচনার সিদ্ধান্ত দিয়েছে ইসি। এজন্যে মাঠ পর্যায়ে তদন্ত চলছে।

তিনি জানান, বাংলাদেশ জাসদের এটি নতুন কোনো আবেদন নয়। সংসদ সদস্য রয়েছে উল্লেখ করে একটা আবেদন নাকচ হওয়ায় জেলা-উপজেলা কমিটির তালিকা দিয়েছিল দলটি। সেই আবেদনই আমলে নেওয়া হয়েছে।

আগামী ১০ দিনের মধ্যে মাঠ পর্যায়ের তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে উল্লেখ করেন এ কর্মকর্তা।
নিবন্ধন নিতে নতুন দলকে হয় একজন সংসদ সদস্য থাকতে হবে নতুনা জেলা-উপজেলার কমিটির তালিকা দিতে হবে।

রোববার জানতে চাইলে বাংলাদেশ জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান জানান, গেল সপ্তাহে নিবন্ধন আবেদন আমলে নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে এমন চিঠি দিয়েছে ইসি।আমাদের প্রথমেই জানিয়েছিল সংসদ সদস্য থাকলেও নিবন্ধন দেওয়া হবে না। ওই চিঠি পেয়েই আমরা জেলা-উপজেলা কমিটির তালিকা দিয়ে পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন করি। বিশেষ কোনো ফেভার কিংবা নতুন আবেদন নয়, নির্ধারিত সময়ে আবেদন করেছি বলেই তা আমলে তদন্ত করা হচ্ছে। মাঠ পর্যায়ে ৩৭টি জেলার কমিটি ও শতাধিক উপজেলার সমর্থকদের তালিকা যাচাই শেষে নিবন্ধন পাবে বলে আশা করেন তিনি।

নাজমুল হক প্রধান বলেন, আমাদের সংসদ সদস্য থাকার পরও নিবন্ধন দিল না। এখন মাঠে তদন্ত চলছে। সব কিছু ঠিক থাকার পরও নিবন্ধন না দিলে আমরা আদালতে যাব।

বিডি২৪লাইভ/আরএইচ/এমআর


বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: