শাহাদাত হোসেন রাকিব

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

‘নরপিশাচরা শরীরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে উল্লাস করেছে’

২৮ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৩৩:৪৬

ছবি: ইন্টারনেট

পাবনায় মুক্তিযোদ্ধার কলেজ পড়ুয়া মেয়ে মুক্তি খাতুনের শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যার নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং দোষীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছে আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কেন্দ্রীয় কমিটি।

আজ মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) রাজধানীর শান্তিনগরে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান শাহীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত জরুরি সভায় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মুক্তিযোদ্ধার কন্যার মৃত্যুতে গভীর শোক ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও শহীদ সংসদ সদস্য নুরুল হক হাওলাদারের কন্যা জোবায়দা হক অজন্তা, সহ-সভাপতি সাংবাদিক মিজান রহমান ও ওমর ফারুক সাগর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর রশিদ রনি, আব্দুল্লাহ-আল মামুন ও আল-আমিন মৃদুল, কোষাধ্যক্ষ ও দপ্তর সম্পাদক আহমাদ রাসেল, ঢাকা মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম রতন বক্তব্য রাখেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যাদের বীরত্বে ও আত্মত্যাগে আমরা স্বাধীন বাংলাদেশ পেয়েছি, সেসব বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের এমন মৃত্যু কোনোভাবেই সহ্য করা যায় না।

তারা বলেন, নরপিশাচরা মুক্তির শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে উল্লাস করেছে, আর আমাদের বোন জীবন্ত দগ্ধ হয়ে আর্তচিৎকার করেছে। আট দিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে নরক যন্ত্রণা ভোগ করে গতকাল সে চিরবিদায় নিয়েছে। যা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আরো একটি বার্তা দিয়ে গেছে।

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সুরক্ষা আইন প্রণয়নের জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান।

উল্লেখ্য, একটি উন্মুক্ত জলাশয় দখলকে কেন্দ্র করে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার নাগডেড়া ইউনিয়নের নাগডেমরা গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হকের বাড়িতে প্রতিপক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ১৯ আগস্ট হামলা চালায়। এ সময় মোজোম্মেল হকসহ অন্যরা বড়াল নদী পার হয়ে পালিয়ে যায়। পুরুষদের না পেয়ে হামলাকারীরা পাবনা সরকারি অ্যাডওয়ার্ড কলেজের দর্শন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী মুক্তি খাতুনকে ঘর থেকে টেনে উঠোনে নিয়ে গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। তারা ওই মুক্তিযোদ্ধার একটি ঘরেও আগুন লাগিয়ে দেয়।

বিডি২৪লাইভ/এসএইচআর/এমআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: