প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

আরমান হোসেন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

সংসদীয় কমিটির প্রতিবেদন

এডিপি বাস্তবায়নে পিছিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়

২৯ আগস্ট, ২০১৮ ০০:৫৮:১২

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের জাতীয় গড় অগ্রগতির কাছাকাছিও নেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জুলাই মাস পর্যন্ত এডিপি বাস্তবায়নের জাতীয় গড় অগ্রগতি যেখানে শুণ্য দশমিক ৫৭ শতাংশ সেখানে এই মন্ত্রণালয়ের আর্থিক অগ্রগতি শুণ্য দশমিক ২৩ শতাংশ। অর্থাৎ জাতীয় অগ্রগতির তুলনায় এ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক অগ্রগতি শুণ্য দশমিক ৩৪ শতাংশ কম।

জাতীয় সংসদ ভবনে মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) অনুষ্ঠিত সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব তথ্য জানানো হয়। কমিটির সভাপতি মো. আব্দুস শহীদেও সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য আলহাজ অ্যডভোকেট মো. রহমত আলী, মো. আব্দুল মজিদ খান এবং মীর মোস্তাক আহমেদ রবি অংশ নেন।

বৈঠকে জানানো হয়, চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের আওতায় মোট ৭১টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এই ৭১টি প্রকল্পে মোট বরাদ্দ ৫ হাজার ৭৩৫ দশমিক ৮৫ কোটি টাকা। গত জুলাই মাস পর্যন্ত প্রকল্পগুলোতে ব্যয় হয়েছে মাত্র ১৩ দশমিক ১৪ কোটি টাকা। এদিকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়নাধীন আছে। এই ১০টি প্রকল্প মোট বরাদ্দ ৭৭৩ দশমিক ৭৮ কোটি টাকা। জুলাই পর্যন্ত এসব প্রকল্পে কোন অর্থই ব্যয় হয়নি।

এদিকে বৈঠকে জানানো হয়, দেশের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সকল ছাত্রীকে উপবৃত্তির আওতায় আনার লক্ষ্যে সেকেন্ডারি এডুকেশন ষ্টাইপেন্ড প্রজেক্টের মাধ্যমে ১০ শতাংশ ছাত্র এবং ৩০ শতাংশ ছাত্রীকে উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের আওতায় ও একই হারে উপবৃত্তি প্রদান করা হচ্ছে। কমিটি বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি উপজেলায় আনুপাতিক হারে কারিগরি বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্প গ্রহনের সুপারিশ করে।

বৈঠকে স্কুল কলেজের নতুন ভবন নির্মানে প্রকল্প গ্রহণের পূর্বে অবশ্যই সঠিক সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রকল্প পাশ করার পরামর্শ দেয়া হয় যাতে ভবিষ্যতে নতুন প্রকল্প গ্রহণ করতে না হয় এবং প্রকল্প ব্যয় বৃদ্ধি না পায়। এছাড়া স্কুল কলেজের অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজের দিকে আরো বেশি গুরুত্ব প্রদান এবং অবকাঠোমো উন্নয়নে যেসব প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে তা অতিদ্রুত শুরু করার সুপারিশ করা হয়। উচ্চশিক্ষা এবং গবেষনা খাতে সরকারের আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধি পাওয়ার গবেষণা কাজে ছাত্র/ছাত্রীদের আকৃষ্ট করতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণে বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনকে ভুমিকা পালনের পরামর্শ দেয়া হয়।

বিডি২৪লাইভ/আরএইচ/এমআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: