প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

বিমসটেক অঞ্চলের জন্য যে প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ

০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৯:০৪:৫৭

ছবি: সংগৃহীত

বিমসটেকভুক্ত অঞ্চলে সৌর বিদ্যু গ্রিড ও যাত্রীবাহী জাহাজ চালুর প্রস্তব করেছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। শুক্রবার বিমসটেক সম্মেলনের শেষ দিন লিডার্স রিট্রিট সেশন এ প্রস্তাব দেন তিনি।

লিডার্স রিট্রিট সেশন শেষে বিষয়টি নিশ্চিত করে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

কাঠমান্ডুর হোটেল সোয়ালটি ক্রাউনি প্লাজায় অনুষ্ঠিত এ সেশন শেষে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক জানান, আঞ্চলিক, আন্তর্জাতিক ও বাংলাদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিমসটেকের সদস্য দেশের নেতাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আলোচনা হয়েছে।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, দেশগুলোর মধ্যে ব্যবসা, বিনিয়োগ, বিদ্যুৎ উৎপাদন-বিতরণ এবং বিদ্যুৎ এক দেশ থেকে সদস্য অন্য দেশে কেনাবেচাসহ সার্বিক বিষয়ে নেতারা বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। এসব বিষয়ে পর্যালোচনা করতে এবং কোন দেশে কী পরিমাণ বিনিয়োগ হবে অথবা কোন দেশ কী পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন ও রফতানি করতে পারবে, তা ঠিক করতে একটি যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনেও নেতারা সম্মত হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমুদ্রপথে বিমসটেক ক্রুজ চালু করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এসময় নেপাল ও ভুটান প্রয়োজনে বাংলাদেশের সমদ্রবন্দর ব্যবহার পাশাপাশি নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিয়েও তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে বলে জানান পররাষ্ট সচিব ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সৌর বিদ্যুতের জন্যও আঞ্চলিক গ্রিড করার প্রস্তাব দিয়েছেন জানিয়ে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক বলেন, সৌর বিদ্যুতের জন্যও আঞ্চলিক গ্রিড করার প্রস্তাব দিয়েছেন শেখ হাসিনা। কারণ এ অঞ্চলের অনেক দেশেই দীর্ঘ সময় সূর্যালোক পাওয়া যায়। নেপাল ও ভুটানের যথেষ্ট পরিমাণ জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের সুযোগ রয়েছে এবং তারা প্রতিবেশী দেশগুলোয় তা রফতানি করতে পারে।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ কেনাবেচার মতো বিষয়ে বিমসটেক দেশগুলো এর আগে পদক্ষেপ নেয়নি। তবে এবারের রিট্রিট সেশনে নেতাদের আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে এ খাতে বড় ধরনের সহযোগিতার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ এশিয়ার বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, নেপাল ও শ্রীলংকা এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডকে নিয়ে ১৯৯৭ সালের ৬ জুন ব্যাংকক ঘোষণার মধ্য দিয়ে উপআঞ্চলিক সংস্থা বিমসটেক গঠিত হয়।

এর আগে চতুর্থ বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে বৃহস্পতিবার কাঠমান্ডু যান প্রধানমন্ত্রী। সম্মেলন শেষে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ৩৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিডি২৪লাইভ/এএইচ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: