হাবিবুর রহমান

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লায় ওবায়দুল কাদের

‘আ’লীগ দেয় বিদ্যুৎ, বিএনপি দেয় খাম্বা’

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২০:০৬:০০

ছবি : প্রতিনিধি

উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত ও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত করতে বিএনপি কেবল নালিশ করে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘তবে বিএনপির নালিশ এখন আর কেউ শুনছে না।’

শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) কুমিল্লা টাউন হলে আয়োজিত পথসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন। এর আগে মন্ত্রী কুমিল্লার ইলিয়টগঞ্জ রাবি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কুমিল্লা উত্তর জেলা আয়োজিত আওয়ামী লীগের পথ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে তৃতীয় দফা সাংগঠনিক সফরে সড়কপথে ঢাকা থেকে কক্সবাজার নির্বাচনী যাত্রা করছেন তিনি। আজ সকাল সাড়ে আটটায় ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয় থেকে তৃতীয় দফা সফরে কক্সবাজারে উদ্দেশে রওনা দেন কাদের। কুমিল্লার টাউন হলে আসার আগে পথে কয়েক জায়গায় পথসভায় যোগ দেন তিনি।

এর আগে প্রথম দফায় আকাশপথে ঢাকা থেকে সিলেট এবং দ্বিতীয় দফায় ট্রেনে ঢাকা থেকে নীলফামারী পর্যন্ত নির্বাচনী সফর করেন ক্ষমতাসীন দলের এই সাধারণ সম্পাদক।

কাদের বলেন, ‘নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে বিএনপির কর্তারা আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নালিশ দিয়ে যাচ্ছে। দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে, বিদেশিদের কাছে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে এভাবে নালিশ দিয়ে বিএনপি এখন ‘বাংলাদেশ নালিশ পার্টি’তে পরিণত হয়েছে। তাদের মিথ্যাচারের নালিশ এখন আর কেউ শুনছে না।’

সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপির আন্দোলনের হুমকি নিয়ে রসিকতা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ঈদের পরেই আন্দোলন করবে বলে গত ১০ বছরে ২০টি ঈদ গেল, আন্দোলন আর হয় না। আন্দোলনের ডাকে গেল দশ বছর, মানুষ বাঁচে কয় বছর।’

কাদের বলেন, ‘এমন মিথ্যাচারীদের দলকে পরিহার করে জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দেশ আজ উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হচ্ছে। তাই আসন্ন নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা ত্বরান্বিত করবেন- কুমিল্লাবাসীর কাছে এই আমার চাওয়া।’

এ সময় সমাবেশে উপস্থিত দলের নেতাকর্মীরা কুমিল্লাকে বিভাগ বাস্তবায়নের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘কুমিল্লার মানুষ শান্তিপ্রিয় মানুষ। আপনারা ধৈর্য্য ধারণ করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে কুমিল্লা বিভাগের ফাইলটি আছে। বড় কিছু পেতে হলে ধৈর্য্য ধারণ করতে হয়। আগামী নির্বাচনে বিজয়ী হলে কোনো দাবি অপূর্ণ থাকবে না।’

‘কুমিল্লায় যত উন্নয়ন হয়েছে নোয়াখালীতেও এতো উন্নয়ন হয়নি। আওয়ামী লীগ দেয় ‘বিদ্যুৎ’ আর বিএনপি দেয় ‘খাম্বা’। উন্নয়নের স্বার্থে শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে।’

‘জাতিসংঘের মহাসচিবের আমন্ত্রণ নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করেছে’ উল্লেখ করে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি শুধু নালিশ পার্টি নয়, ভুয়া পার্টিও। যারা জাতিসংঘের মহাসচিবের আমন্ত্রণ নিয়ে মিথ্যাচার করে, আগুন দিয়ে মানুষ মারে তাদের কাছে দেশ ও দেশের মানুষ নিরাপদ নয়। যাদের রাস্তায় দাঁড়ানোর মুরোদ নেই অফিসে বসে পুলিশের খোঁজ নেয়, তারা করবে আন্দোলন!’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ‘অশুভ শক্তির জোট হয়েছে। এই জোট সম্পর্কে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে সতর্ক থাকতে হবে। তাদের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে হবে। শেখ হাসিনাকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে।’

কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহারের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন- কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল), সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম এমপি, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত।

এ সময় আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য আব্দুল মতিন খসরু, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলসহ কুমিল্লা জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনা করেন- মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক আবদুল হাই বাবুল ও সাংগঠনিক চিত্তরঞ্জন ভৌমিক।

এদিকে শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় কুমিল্লার ইলিয়টগঞ্জ রাবি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে কুমিল্লা উত্তর জেলা আয়োজিত আওয়ামী লীগের পথ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে আন্দোলনমুখী বিএনপির উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, ‘বিএনপির সকল কর্মসূচি হয় ঈদের আগে ও পরে। কত ঈদ আসলো আর কত ঈদ গেলো তাদেরকে আর মাঠে দেখা গেলো না। আপনাদের ডাকে এখন আর জনগণ সাড়া দিবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দিয়েছেন। আর শেখ হাসিনার উন্নয়নের জোয়াড়ে ভাসছে বাংলাদেশের মানুষ। উন্নয়নের মহাসাগরে মরা গাঙ্গের খবর কেউ রাখে না।’

দলীয় মনোনয়ন নিয়ে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘এই মঞ্চেই বসে আছেন অনেক প্রার্থী। শুধু প্রার্থী আর প্রার্থী। আপনারা কেউ ঘরের মধ্যে ঘর বসাবেন না। নিজেদের মধ্যে অসুস্থ প্রতিযোগিতা করবেন না।’

‘চায়ের দোকানে বসে নিজের দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে সমালোচনা না করে বিএনপি-জামায়াতের আক্রমনের কথা তুলে ধরেন। আপনাদের সকলের আমলনামাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা আছে। জনগণের কাছে যিনি গ্রহণযোগ্য তাকেই মনোনয়ন দেয়া হবে।’

বিডি২৪লাইভ/এইচকে/ওয়াইএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: