রফিকুল ইসলাম

বান্দরবন প্রতিনিধি

লামায় স্কুল ছেড়ে রাজপথে শিক্ষার্থীরা

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৬:০০:০০

ছবি: প্রতিনিধি

লামা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষা সামগ্রী ক্রয়ে অনিয়ম, শিক্ষক সংকট ও শ্রেণিকক্ষ সমস্যা নিরসনের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ক্লাস বর্জন করে রাজপথে নেমে আসে প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থীরা। বিক্ষোভ মিছিলটি বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ হতে শুরু হয়ে লামা বাজার প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে তাদের দাবিগুলো উপস্থাপন করে।

লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি শিক্ষার্থীদের সদস্যাগুলো শুনেন এবং তা নিরসনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন। তিনি শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেন এবং তাদের সমস্যা গুলো তুলে ধরে একটি লিখিত অভিযোগ করতে বলেন।

জানা গেছে, বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমে ব্যবহার করার জন্য ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সরকারি বরাদ্দকৃত বিভিন্ন খাতের ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিথী তঞ্চঙ্গ্যা’কে অভিযুক্ত করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন একই বিদ্যালয়ে কর্মরত ৬ জন শিক্ষক। অনিয়মের বিষয়টি জানাজানি হলে ক্ষোভে ফেটে পড়ে স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

বিদ্যালয়ের ৯ম ও ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের স্কুলের বিজ্ঞানাগারে ব্যবহারিক রাসায়নিক উপকরণ, স্কুলের নানা শিক্ষা সামগ্রী ও স্কুল মেরামত না করে ভুয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। বিষয়গুলো তদন্ত পূর্বক ব্যবস্তা গ্রহণের জন্য আমরা বিক্ষোভ মিছিল করেছি। এছাড়া শিক্ষক সংকট ও শ্রেণিকক্ষ বৃদ্ধিতে প্রশাসনের সহায়তা কামনা করছি।

এসব অভিযোগের বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিথী তঞ্চঙ্গ্যা জানান, ক্রয় কমিটিতে না রাখায় ওই শিক্ষকগণ এই অভিযোগ তুলেছে। আজকের বিক্ষোভ মিছিল করতে স্কুলের গুটি কয়েক শিক্ষক নেপথ্যে থেকে ছেলে-মেয়েদের উৎসাহ দিয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন করে রাজপথে নামানোর বিষয়টি দুঃখজনক। কোন অনিয়ম হয়নি। সকল উপকরণ ক্রয় করা হয়েছে যা এখন বিদ্যালয়ে মজুদ আছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া বলেন, বিষয়টি আমি জেলা শিক্ষা অফিসারকে জানিয়েছি। তিনি পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সোমা রাণী বড়ুয়া বলেন, যারা কোমলমতি শিক্ষার্থীদের রাজপথে নামিয়েছে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবেনা। অনিয়মের বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি জানান, শিক্ষার্থীদের মিছিলের বিষয়টি আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

প্রসঙ্গত, লামা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে বর্তমানে ৬শ’ ১৮ জন ছাত্রছাত্রী লেখাপড়া করছে। বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকসহ ২৭টি পদের বিপরীতে ১৮টি পদ শূন্য রয়েছে। সহকারী প্রধান শিক্ষকসহ ৯ জন শিক্ষক কর্মরত আছেন।

বিডি২৪লাইভ/এমকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: