হাথুরুর আসল রূপের বর্ণনা দিলেন ম্যাথুস!

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১২:৫৮:১৬

ছবি: সংগৃহীত

চলমান এশিয়া কাপে গ্রুপপর্ব থেকে বিদায় নেয় সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের কাছে শোচনীয়ভাবে পরাজয়ের পর এর সব দায়ভার চাপানো হয় অধিনায়ক ম্যাথুসের ওপর।

আর এসবের নাটের গুরু আর কেউ নন। তিনি শ্রীলঙ্কার কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। হাথুরুসিং গত বছর নভেম্বরে হঠাৎ করেই বাংলাদেশের দায়িত্ব ছেড়ে শ্রীলঙ্কার কোচ হিসেবে যোগ দেন। তার এ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ শিবিরে স্বস্তি ফিরলেও অবাক হয়েছিল বাংলাদেশের ক্রিকেট মহল।

হাথুরুর অধীনে বাংলাদেশের সাফল্য আসলেও, তাকে নিয়ে অস্বস্তিরও শেষ ছিল না বিসিবি’র মধ্যে। বিশেষ করে দল নির্বাচনসহ নানা বিষয়ে তার হস্তক্ষেপে বিরক্ত ছিলেন সিনিয়র খেলোয়াড়রাও। এ নিয়ে অসন্তোষও ছিল দলের মধ্যে।

এদিকে যে আশা ও উদ্দেশে হাথুরুসিংহেকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয় লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড তাতে লাভের বিপরীতে ক্ষতি হচ্ছে বেশি। কেননা ক্রিকেটার নির্বাচনসহ শ্রীলঙ্কা বোর্ডের বিভিন্ন বিষয়ে অযাচিত হস্তক্ষেপের অভ্যাস ত্যাগ করতে পারেননি তিনি।

আর ৫০ বছর বয়সী এই কোচের আসল রূপ দেখল ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টিতে লঙ্কান দলের অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলা ম্যাথুস। হাথুরুর কারণে অধিনায়কত্বের পদ ছাড়তে হচ্ছে ৩১ বছর বয়সী এই অল রাউন্ডারের। অথচ এই হাথুরুর অনুরোধ পুনরায় দলের দায়িত্ব নিয়েছিলেন ম্যাথুস!

শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) এক মিটিংয়ে নির্বাচক কমিটি ও কোচ হাথুরুসিংহে ম্যাথুসকে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব থেকে সরে যেতে বলে।

নির্বাচক কমিটি ও কোচ হাথুরুসিংহের এমন সিদ্ধান্তে বিস্মিত ম্যাথুস, তাই তাৎক্ষণিকভাবে তিনি বুঝতে পারেন, এশিয়া কাপের ব্যর্থতার জন্য তাকে বলির পাঁঠা বানানো হচ্ছে।

ম্যাথুস বলেন ‘এশিয়া কাপে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাজে হারের জন্য আমাকে বলির পাঁঠা করা হয়েছে।’

এ বিষয়ে সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহীর কাছে এক চিঠি দিয়েছেন ম্যাথুস।

চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত একটি মিটিংয়ে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে ও নির্বাচক কমিটি আমাকে ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টির অধিনায়কের পদ ছেড়ে দিতে বলেছে। এ প্রস্তাবে আমি খুবই অবাক হয়েছি। তাৎক্ষণিকভাবে আমার মনে হয়েছে, এশিয়া কাপে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের কাছে হারের কারণে আমাকে বলির পাঁঠা বানানো হয়েছে। ওই হারের দায় নিতে আমি প্রস্তুত। কিন্তু একই সাথে আমার মনে হয়েছে, আমি বিশ্বাসঘাতকতার শিকার হয়েছি।’

ম্যাথুস দলের ব্যর্থতার দায় নিতে প্রস্তুত হলেও সমস্ত দায় একা নিজের ঘাড়ে নিতে রাজি নন।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে তিনি লিখেছেন, ‘আপনি জানেন, দলের সব সিদ্ধান্ত নির্বাচক কমিটি ও কোচের সাথে মিলে নেওয়া হয়। তাই আমি এ যুক্তির সাথে একমত নই যে, হারের জন্য একমাত্র আমার অধিনায়কত্বই দায়ী।’

দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াবেন জানিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘যাই হোক, আমি নির্বাচক কমিটি ও হেড কোচের অনুরোধকে মন থেকে শ্রদ্ধা জানিয়ে দ্রুত দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াবো।’

হাথুরুর অতীত কর্মকাণ্ড স্মরণ করিয়ে দেন তিনি চিঠিতে লিখেছেন, হাথুরুসিংহের অনুরোধেই দলের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব আবার কাঁধে তুলে নেন। কারণ কোচ তাকে অনুরোধ করেছিলেন, ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ পর্যন্ত দলের দায়িত্ব নিতে। সেই অনুযায়ী নিজের পরিকল্পনাও জানিয়েছিলেন ম্যাথুসকে। কোচের কথায় বিশ্বাস রেখে দেশের স্বার্থে সেদিন রাজি হয়েছিলেন ম্যাথুস।

অথচ সেই হাথুরুই এশিয়া কাপের হারের ব্যর্থতার সব দায় চাপিয়ে দিয়ে ম্যাথুসকে পদ ছাড়তে বাধ্য করেছেন। ফলে আসন্ন ইংল্যান্ড সিরিজে তিনি আর অধিনায়ক থাকছেন না। টেস্ট অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমালকে এরই মধ্যে ওয়ানড দলের অধিনায়ক ঘোষণা করা হয়েছে।

বিডি২৪লাইভ/এএইচ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: