প্রেমিককে কৌশলে পুলিশে দিল প্রেমিকা (ভিডিও)

১৩ অক্টোবর, ২০১৮ ২০:২০:০০

ছবি : সংগৃহীত

প্রেমিকের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের ক্ষোভ ছিল প্রেমিকার। নানান সময় তাকে নির্যাতন করতো অভিযুক্ত প্রেমিক। তাই শেষমেষ বাধ্য হয়ে নিজেই পুলিশে দিলেন প্রেমিককে। এ ঘটনা ঘটেছে ইতালির ভেলুসিয়ায়। সম্প্রতি এমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে।

এ বিষয়ে ভেলুসিয়া পুলিশ জানায়, মেয়েটির নাম রিশেল ও অভিযুক্ত বন্দুকধারী প্রেমিকের নাম ফ্লয়েড। ফ্লয়েডকে নারী নির্যাতন মামলায় গ্রেফতার করেছে ভোলুসিয়া কাউন্টি ব্রাঞ্চ। রিশেল আপাতত স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সাহসিকতার জন্যই আজ এমন নৃসংশতার হাত থেকে রেহাই পেলেন রিশেল।

ভাইরাল ওই ভিডিওতে দেখা যায়, পোষা কুকুরকে ডাক্তার দেখাতে পশু হাসপাতালে এসেছেন মেয়েটি। সঙ্গে তার প্রেমিক। মেয়েটি যেখানেই যাচ্ছেন, হাতে মোবাইল নিয়ে প্রেমিকও সঙ্গে সঙ্গে যাচ্ছেন।

হঠাৎ করে মেয়েটি ওয়াশরুমে যাওয়ার বাহানা দেখিয়ে বেরিয়ে যান। তার পর ধীরে ধীরে রিসেপশন কাউন্টারের সামনে আগায় মেয়েটি। পকেট থেকে বের করে একটি চিরকুট। ওয়াশরুমে গিয়েই সেটি লিখেছেন তিনি। চিরকুটটি দিয়েই আবার প্রেমিকের কাছে ফিরে আসেন মেয়েটি। কুকুরকে নিয়ে হাসপাতালে ওয়েটিংরুমে বসে অপেক্ষা করতে থাকেন তারা।

কাউন্টারে কর্মরত দুই নারী কর্মী চিরকুটটি পড়ে প্রথমে কিছুই বুঝে উঠতে পারেননি। নিজেদের মধ্যে কিছুক্ষণ আলোচনা সেরে নেন। কারণ মেয়েটির দেয়া চিরকুটে লেখা ছিল- পুলিশ ডাকো, আমার বয়ফ্রেন্ড আমাকে হুমকি দিচ্ছে। ওর কাছে বন্দুক আছে ওকে বেরোতে দিও না।

ইতিমধ্যে সাহস করে পুলিশকে খবর দিয়ে দিয়েছেন ওই হাসপাতাল কর্মীরা। ঠিক ১৫ মিনিট পর পুলিশ আসে এবং হাতেনাতে বন্দুকসহ ছেলেটিকে (প্রেমিক) ধরে ফেলেন। ছেলেটিকে গ্রেফতার করে নিয়ে গেলে মেয়েটি প্রচণ্ড কান্নায় ভেঙে পড়েন।

নিজের শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখিয়ে কান্নারত মেয়েটি জানান, দাগ দেখান অভিযোগ করেন, প্রতিদিনই তাকে ঘরে বন্ধ করে শারীরিক নির্যাতন করতেন তার প্রেমিক। এ নিয়ে কথা বলতে গেলেই বন্দুকের ভয় দেখাতেন। গুলি করে মেরে ফেলার হুমকি দিতেন রোজ।

এভাবে প্রেমিক থেকে বাঁচতে পেরে ওই দুই নারী কর্মীকে ধন্যবাদ জানান মেয়েটি। প্রেমিকের যেন উপযুক্ত সাজা হয় সেই আর্জিও করেন তিনি পুলিশের কাছে।

ভাইরাল সেই ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন...

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: