আরেফিন আল ইমরান

ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর

স্বাগতিক হয়েও বেসামাল কেন পাকিস্তান?

১৪ অক্টোবর, ২০১৮ ১২:২৭:৫৭

ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তানকে বলা হয় ‘আনপ্রেডিক্টেবল টিম’। কথাটা যে মিথ্যে নয়, তার প্রমাণ পাওয়া গেছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট ম্যাচেও। নিশ্চিত জয় থেকে ছিটকে পড়ে ড্র নিয়ে মাঠ ছেড়েছে সরফরাজ বাহিনী। যে পরিস্থিতি থেকে অসিরা ম্যাচে ফিরেছে, তা নিঃসন্দেহে মনে রাখার মত। সম্প্রতি এশিয়া কাপেও বিধ্বস্ত হয়েছে পাকিস্তান। বাংলাদেশের বিপক্ষে তো বটেই, ভারতের বিপক্ষে স্রেফ উড়ে গেছে দুই ম্যাচে। স্বাগতিক হয়েও আরব আমিরাতে এভাবে কেন হারছে পাকিস্তান, তা অবশ্যই আলোচনার দাবি রাখে।

২০০৯ সালের কথা। সেবার শ্রীলংকা দলের বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাত বনে গেছে পাকিস্তান ক্রিকেটের হোম ভেন্যু। এখানকার স্পিন সহায়ক পিচে দলটি অনেক সাফল্য পেয়েছে, বড় বড় দলগুলোকে হারিয়েছে, সিরিজের পর সিরিজ জিতেছে, কি না করেছে। তবে সব কিছুরই সমাপ্তি ঘটতে যাচ্ছে।

পাকিস্তানের সাম্প্রতিক পারফর্ম্যান্স এখানে খুবই হতাশাজনক। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চলমান সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্র এবং সফরকারী শ্রীলংকার কাছে ২-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হওয়া থেকেই বুঝা যাচ্ছে দুবাই, আবু ধাবি এবং শারজাহতে ধীরে ধীরে পাকিস্তানের একক প্রাধান্য কমে আসছে।

একথা ক্রিকেটপ্রেমীরা সবাই জানেন যে, সব সময়ই স্বাগতিক দলগুলো নিজেদের মতো করে পিচ তৈরি করে থাকে সুবিধা পাওয়ার জন্য, যা থেকে সফরকারী দলের ওপড় ছড়ি ঘোরানো হয়ে থাকে। যেটা লংগার ভার্সনের জন্য একটা বিপদ সংকেত।

এজন্য স্বাগতিক ও সফরকারী দুই দলের মধ্যে সঠিক প্রতিদ্বন্দিতার জন্য ঐতিহাসিক টস প্রথাও এখন অনুবীক্ষণ যন্ত্রের নিচে। অর্থাৎ অনেকেই টস প্রথা তুলে দেয়ার কথা বলছেন। তবে খুব শিগগিরই এ বিতর্কের সমাধান হওয়ার লক্ষণ নেই। তবে সাম্প্রতিক সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাকিস্তানের পরাজয় থেকে এটাই বোঝা যাচ্ছে- এখানে তারা এখন আর সুবিধা পাচ্ছে না।

প্রশ্নের জায়গা তৈরী হয়েছে সরফরাজের ক্যাপ্টেন্সি নিয়ে। মিসবাহ-উল হক অধিনায়ক থাকাকালে টেস্ট ক্রিকেটে সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রথমে ব্যাটিং সুবিধা কাজে লাগিয়ে পাকিস্তান প্রথম ইনিংসে তিন শতাধিক রান করতে সক্ষম হয়েছে এবং এরপর প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট শিকার করতে পেরেছে। তবে সরফরাজ আহমেদের নেতৃত্বে এটা কার্যকর হচ্ছে না। এখানে সুবিধা আদায় করতে পাকিস্তানকে এখন নতুন পরিকল্পনা করতে হবে।

কোনো সন্দেহ নেই যে, চলমান সিরিজে প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের জয় ছিনিয়ে নেয়ার কৃতিত্ব অবশ্যই অস্ট্রেলিয়ার। তবে ম্যাচের প্রথম চার দিন অবশ্য অসিদেরও বেগ পেতে হয়েছে। সুতরাং দুবাইতে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় ম্যাচে নিজেদের সুনাম পুনঃপ্রতিষ্ঠা করার একটা সুযোগ পাচ্ছে পাকিস্তান। দেখা যাক, সরফরাজের দল এ সুযোগ কতোটা কাজে লাগাতে পারে।

বিডি২৪লাইভ/এএআই

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: