সম্পাদনা: হৃদয় আলম

ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর

দলে পরিবর্তন আনার বিষয়ে যা বললেন মাশরাফি

২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ১৭:৪৭:০০

ছবি : ইন্টারনেট থেকে

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে বেশ ভয় পাইয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম চিন্তার কারণ ‘জুনিয়রদের’ গ্রুপ। বুধবার (২৪ অক্টোবর) জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ নিশ্চিতের ম্যাচে মাঠে নামবে টাইগাররা। তবে তার আগে তামিম-সাকিবের অনুপস্থিতিতে দল নির্বাচন নিয়ে ‘বিলাসিতার’ কোনও সুযোগ নেই বলে জানিয়ে দিয়েছেন কাপ্তান মাশরাফি বিন মুর্তজা।

গত ম্যাচে নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট পড়ছিল। ৩ উইকেটে ১৩৭ থেকে একপর্যায়ে স্কোরবোর্ড বাংলাদেশ দেখছিল ৬ উইকেটে ১৩৯। পরপর ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা দলকেই আলোর পথ দেখান ইমরুল কায়েস, সাইফউদ্দিনকে সঙ্গী করে। দিন শেষে দাপুটে জয়ের পরেও ক্রিকেটপ্রেমীদের ব্যাপারটা বেশ ভাবাচ্ছে। যদি ইমরুল ১৪৪ রানের ইনিংসটা না খেলতে পারতেন, যদি সাইফউদ্দিনের ব্যাট কথা না বলত...!

সিরিজ জয়ের মিশনে সোমবার রাতেই বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পৌঁছে গেছে টিম বাংলাদেশ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় একাদশ নির্বাচন নিয়ে আলোচনায় বসবেন নির্বাচক ও প্রধান কোচ। তার আগে মাশরাফি সাংবাদিকদের ইঙ্গিত দিয়েছেন, দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও একই দল নিয়েই মাঠে নামবে টিম টাইগারস।

মাশরাফি বলেন, ‘এখন হয়তো জিম্বাবুয়েকে আপনারা ওভাবে (দুর্বল) দেখছেন, চিন্তা করছেন। আমরা যে ওভাবে চিন্তা করছি না। কোনো জায়গা থেকে ছোট করছি না। তাদেরকে কোনো জায়গা থেকে ছোটো করার সুযোগ নেই। তারা সব সিনিয়র খেলোয়াড়রাই এসেছে। তারা তাদের সেরা খেলা খেললে আমাদের জন্য কঠিন হবে।’

প্রথম ওয়ানডেতে জিতে সিরিজে এগিয়ে আছেন টাইগাররা। দ্বিতীয় ম্যাচ জিতলেই এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত হয়ে যাবে টাইগারদের। এ ম্যাচে দলের সবার কাছ থেকে ভালো পারফরম্যান্সের প্রত্যাশা করছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

মাশরাফি বলেন, ‘দলে কোন পরিবর্তন আসবে কিনা বলা এখনই কঠিন। আমাদের দুই-তিনজন খেলোয়াড় এখনো বাইরে আছে। এটা আমাদের সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ। যারা দলে আছে হুট করে তাই তাদের সরিয়ে দেয়া কঠিন। তবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আমাদের কোচ-নির্বাচকরা আছেন। বাংলাদেশ এখনও বিলাসিতার পর্যায়ে নয়।’

জ্বরের কারণে প্রথম ওয়ানডেতে খেলেননি পেসার রুবেল হোসেন। মুস্তাফিজের ইনজুরি নিয়ে ফিজিওর রিপোর্টের অপেক্ষায় আছে বিসিবি। আর অভিষেক ম্যাচে শূণ্য রান করে ফিরলেও এক ম্যাচ পরই রাব্বিকে সাইড বেঞ্চে বসানোর পক্ষে নন ম্যাশ। অন্য সবার মতো মাশরাফিও মনে করেন- এক ম্যাচ দিয়ে কাউকে বিচার করা যায় না।

টানা দুই ওয়ানডেতে অপেনাররা সেঞ্চুরি পেয়েছেন। এশিয়া কাপের ফাইনালে লিটন দাসের ১২৭ রান ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ইমরুল কায়েসের ক্যারিয়ার সেরা ১৪৪ রান। এছাড়া এশিয়া কাপে মুশফিক সেঞ্চুরি পেয়েছেন। পাকিস্তানের বিপক্ষে করেছেন ৯৯ রান।

তবে মাশরাফির মাথায় চিন্তুা থেকেই যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘টপ অর্ডারের কেউ বড় ইনিংস খেললে রানটা এমনিতেই তিনশো হয়ে যায়। কিন্তু এশিয়া কাপের ফাইনালে লিটনের ইনিংসটাকে মিলড অর্ডার ব্যাটসম্যানরা লম্বা করতে পারেনি, ইমরুল ১৪৪ রান করার পরও আমরা তিনশো করতে পারলাম না। এ জায়গাটায় আরও একটু ভাবতে হবে।’

তবে তামিম পুরোপুরি ফিট হয়ে মাঠে ফিরলে অপেনিং কিংবা টপ অর্ডারে একটা সুস্থ প্রতিযোগিতা হবে বলে মনে করেন ম্যাশ। বিশ্বকাপকে সামনে রেখে যা দলকে আরও চাঙ্গা করে দিতে পারে।

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম চিন্তার কারণ ‘জুনিয়রদের’ গ্রুপ। দলের পাঁচ সিনিয়র মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহীম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ছাড়া আর কারো ওপরই যেন নির্ভর করা যায় না। বিচ্ছিন্নভাবে কিছু ম্যাচে ভালো করলেও ধারাবাহিক সার্ভিস পাওয়া যাচ্ছে না কারও কাছ থেকেই।

এমতাবস্থায় ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের জন্য একটি স্থিতিশীল দল গড়াই যেন চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের জন্য। ইংল্যান্ডের মাটিতে হতে যাওয়া বিশ্বকাপটির বাকি আর মাত্র কয়েক মাস। বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ দল দেশের মাটিতে চলতি বছরে খেলবে জিম্বাবুয়ে ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। নতুন বছরে খেলা রয়েছে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: