চালু হলো ওয়ালটন ই-প্লাজা অনলাইন সেলস প্রোমোশন

১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:৪৭:৩৪

ছবি: ইন্টারনেট

ঘরে বসেই অনলাইনে পণ্য কিনতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, এমন গ্রাহকদের জন্য ‘ই-প্লাজা’ চালু করল দেশের ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন। নিয়ম মেনে অর্ডার দিলেই ক্রেতার বাসায় পৌঁছে যাবে পণ্য।

এক্ষেত্রে বিভিন্ন ব্যাংকের ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড, ইন্টারনেট অথবা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধমে পণ্যের মূল্য পরিশোধের সুবিধা রয়েছে। থাকছে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্যাশ অন ডেলিভারির সুবিধা। সেই সঙ্গে থাকছে পণ্য ভেদে ২০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়, ফ্রি হোম ডেলিভারি এবং ইএমআই সুবিধা।

রোববার রাজধানীতে ওয়ালটনের করপোরেট অফিসে আয়োজিত ‘অনলাইন সেলস প্রোমোশন লঞ্চিং প্রোগ্রাম’ এ এসব কথা জানানো হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ওয়ালটন গ্রুপের পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম ‘ই-প্লাজা’ সেবা উদ্বোধন করেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন- ওয়ালটন গ্রুপের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ইভা রেজওয়ানা, এমদাদুল হক সরকার, এস এম জাহিদ হাসান, নজরুল ইসলাম সরকার, সিরাজুল ইসলাম, তানভীর রহমান ও মো. রায়হান, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম, সিনিয়র অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর মফিজুর রহমানসহ অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে অনলাইন সেলসের বর্তমান ও ভবিষৎ বাজার সম্ভাবনার ওপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ালটনের অপারেটিভ ডিরেক্টর ফিরোজ আলম। এরপর ওয়ালটনের ‘ই-সেবা’ থেকে পণ্য ক্রয়, মূল্য পরিশোধ, প্রোডাক্ট ডেলিভারিসহ বিভিন্ন প্রক্রিয়ার ব্যবহারিক দিক উপস্থাপন করেন ওয়ালটন আইটি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর শিহান মাহমুদ।

ওয়ালটন গ্রুপের পরিচালক এস এম মাহবুবুল আলম জানান, ক্রেতাদের কাছে ওয়ালটন পণ্য আরো সহজলভ্য করে তুলতেই ই-প্লাজা চালু করা হয়েছে। তার প্রত্যাশা- এতে ক্রেতা সার্ভিস সহজতর হওয়ার পাশাপাশি ওয়ালটন পণ্যের বিক্রি আরো বাড়বে। আগামী বছর ই-প্লাজা সেবার মাধ্যমে ১০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রির লক্ষ্য নির্ধারণ করেন তিনি।

সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্টের নির্বাহী পরিচালক মো. তানভীর রহমান বলেন, শুধু প্লাজা সেলস নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রেতাদের ই-প্লাজা সেবা দেওয়া হবে। ওয়ালটনের শক্তিশালী ডেলিভারি পয়েন্টের মাধ্যমে ক্রেতাদের হাতে আরো দ্রুত ওয়ালটন পণ্য পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। উন্নত ও মানসম্মত কাস্টমার সার্ভিস প্রদানের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মীদের নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তার প্রত্যাশা- অনলাইন ক্রেতাদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাবে ওয়ালটনের ই-প্লাজা সেবা।

ওয়ালটনের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম জানান, স্থানীয় বাজারে ইলেকট্রনিক্স ও ইলেকট্রিক্যাল পণ্যের ক্ষেত্রে গ্রাহকপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে ওয়ালটন। ফলে, সিংহভাগ বাজার নিজেদের করে নিয়েছে ওয়ালটন। ঘরে ঘরে ওয়ালটন পণ্য পৌঁছে দিতে সম্প্রতি বিপণন ব্যবস্থাকে আরো আধুনিক, যুগোপযোগী এবং বিস্তৃত করা হচ্ছে। এজন্য সমন্বিত বিপণন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে প্লাজা ও ডিস্ট্রিবিউটর চ্যানেলের পাশাপাশি করপোরেট বিপণনও শুরু করেছে ওয়ালটন। জোর দেওয়া হয়েছে আন্তর্জাতিক বিপণনে। নতুন আঙ্গিকে শুরু হলো অনলাইন সেলস।

ওয়ালটন অনলাইন সেলস প্রোমোশন প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মঞ্জুরুল হক জানান, অনলাইন ক্রেতাদের জন্য eplaza.waltonbd.com নামে আলাদা একটি ওয়েব পেজ ডেভেলপ করা হয়েছে। এখান থেকে ক্রেতারা অনলাইনের মাধ্যমে সহজেই ওয়ালটন ব্র্যান্ডের ফ্রিজ, টিভি, এয়ার কন্ডিশনার, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপসহ ৬০টিরও বেশি ধরনের ইলেকট্রনিকস, ইলেকট্রিক্যাল, হোম, কিচেন, আইসিটি পণ্য কিনতে পারবেন। বাংলাদেশে প্রচলিত ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড, নেক্সাস, ভিসা ও মাস্টার কার্ড, ইন্টারনেট ব্যাংকিং, বিকাশ, রকেট অথবা এম-ক্যাশের মতো মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পণ্যের মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন।

গ্রাহক ওয়ালটন ই-প্লাজা থেকে ৫ হাজার টাকা সমমূল্যের পণ্য কিনে ডেলিভারির সময় ঘরে থেকেই পণ্যের মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন। গ্রাহক কর্তৃক নির্বাচিত ওয়ালটন প্লাজার ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে থাকছে ফ্রি হোম ডেলিভারির সুবিধা। এই সেবায় শিগগিরই বিভিন্ন ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা বা তার বেশি মূল্যের পণ্য ইএমআই সুবিধায় দেওয়া হবে গ্রাহকদের। ইএমআই (ইক্যুয়াল মান্থলি ইনস্টলমেন্ট) পদ্ধতিতে গ্রাহক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে কিস্তিতে কোনো পণ্য ক্রয় করেন এবং এর মূল্য সমান মাসিক কিস্তিতে ব্যাংককে শোধ করেন।

প্রাথমিকভাবে ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, সাভার ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের ১২টি প্লাজাকে ওয়ালটন ই-প্লাজা সেবার আওতায় আনা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সারা দেশে বিস্তৃত সকল ওয়ালটন প্লাজা অনলাইন সেলস নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।

বিডি২৪লাইভ/এমএম/এমআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: