প্রচ্ছদ / বিনোদন / বিস্তারিত

ছেলেকে নিয়ে স্কুলে শাকিব খান, যা বলল অপু  

১৫ নভেম্বর, ২০১৮ ১৭:২৯:২৩

ফাইল ফটো

পুত্র আব্রাম খান জয়কে ভর্তির জন্য স্কুলে নিয়ে গেছেন শাকিব খান। এ সময় শাকিবের সাথে ছিলেন অপু বিশ্বাস। কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষ জয়কে ভর্তি করেনি। তারা জানিয়েছে অন্তত তিন বছর বয়স না হলে স্কুলে ভর্তি করানো যাবে না।

সোমবার (১২ নভেম্বর)সকালে রাজধানীর বারিধারায় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ঢাকা (এআইএসডি) স্কুলে জয়কে ভর্তির জন্য গিয়েছিলেন শাকিব ও অপু।

বাবা হিসেবে সন্তানের সব দায়িত্ব পালন করছেন ঢালিউডের নাম্বারওয়ানখ্যাত চিত্রনায়ক শাকিব খান। সম্প্রতি ছেলে আব্রাম খান জয়কে স্কুলে ভর্তি করানোর প্রস্তুতি নিয়েছেন তিনি।

এ লক্ষ্যে তাকে নিয়ে স্কুলেও গেছেন এ চিত্রনায়ক। জয়ের মা চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসও সঙ্গে ছিলেন সঙ্গত এ কারণেই। এরপর ভর্তির জন্য ফরম পূরণ করেন বাবা শাকিব ও মা অপু বিশ্বাস।

তবে ফরম পূরণ করলেও রাজধানীর অভিজাত এই স্কুলে জয়কে ভর্তি হতে হলে আরও কয়েক মাস অপেক্ষা করতে হবে।

কারণ বয়স তিন বছর পূর্ণ না হলে স্কুলে ভর্তি হতে পারছেন না জয় স্কুল কর্তৃপক্ষের এমন কথা শুনে শাকিব-অপুর মন খারাপ হয়।

কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষের পরামর্শে সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ঢাকা’-তে প্লে-গ্রুপে ভর্তি করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শাকিব খান।

এর পর বয়স তিন বছর পূর্ণ হলে এআইএসডি-তে ভর্তি করানো হবে তাকে।

শাকিব খান বলেন, ‘জয়ের সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য সব ধরনের চেষ্টা করে যাচ্ছি। আগামী বছরই এআইএসডি-তে তাকে ভর্তি করাতে পারব।’

জয়কে নিয়ে শাকিব আরও বলেন, ‘খুবই দুষ্টুমি করে। ওর সঙ্গে সময় কাটাতে আমার খুব ভালো লাগে। মাঝে মধ্যে ওর সঙ্গে আমিও পড়তে বসে যাই।’

মা অপু বিশ্বাসও জয়ের টেককেয়ারে বাবা শাকিব খানের প্রশংসা করে বলেন, জয়ের ব্যাপারে বাবা শাকিব অনেক সিরিয়াস। এত সকালে ভর্তির জন্য স্কুলে চলে আসবে, আমি কল্পনাও করিনি। জয়ের বাবার প্রতি শ্রদ্ধা বেড়ে গেল।’

তিনি আরও বলেন, ‘সকালে স্কুলের ভেতর বাবা-ছেলের খুনসুটি দেখতে বেশ ভালোই লেগেছে। স্কুলের পরিবেশ দেখে জয়ও অনেক খুশি। কিন্তু আমাদের মন খারাপ হয়ে গেল। তবে আগামী বছর এই স্কুলে জয়কে ভর্তি করাতে পারব।’

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: