প্রচ্ছদ / অপরাধ / বিস্তারিত

নয়াপল্টনে সংঘর্ষ, সেই হামলাকারী আটক 

১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০৯:৫২:০০

পুলিশের দাবি, সংঘর্ষের সময় লাঠি হাতে শার্টের বোতাম খোলা অবস্থায় সংঘাতে জড়াতে দেখা গেছে সোহাগ ভূঁইয়াকে।ছবি: ইন্টারনেট থেকে

নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে গত বুধবার পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর ও পুলিশের দুটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের সঙ্গে জড়িত শাহজাহানপুর থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সোহাগ ভূঁইয়াকে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) আটক করেছে বলে দাবি তুলেছে তার পরিবার।

বিএনপি-পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় একাধিক ভিডিও ফুটেজে লাঠি হাতে শার্টের বোতাম খোলা অবস্থায় হামলা-সংঘাতে জড়াতে দেখা গেছে সোহাগ ভূঁইয়াকে।

রবিবার (১৮ নভেম্বর) রাত পর্যন্ত সোহাগকে আটকের কথা আনুষ্ঠানিক নিশ্চিত করেননি পুলিশের কোন কর্মকর্তা।

জানা গেছে, শাহজাহানপুর থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক সোহাগ ভূঁইয়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের খুব ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

গত বুধবার নয়াপল্টনে সংঘর্ষের সময় পুলিশের দুটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে বিএনপি ও তার অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে তিনটি মামলা করে। মামলায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ নিপুণ রায় চৌধুরীসহ ২০০ জনকে আসামি করা হয়।

এ বিষয়ে সোহাগের বোন সেলিনা আক্তার জানান, রবিবার সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর শনির আখড়ায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে সোহাগকে তুলে নেয় পুলিশ। এর আগে তার পরিবারের সদস্যদের আটক করা হয়। তখন সোহাগ কোথায় লুকিয়ে আছে, তা জানাতে চাপ দেওয়া হয়। স্বজনদের কাছ থেকে ঠিকানা জানার পর তাকে আটক করে পুলিশ।

তবে তদন্ত সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বুধবার নয়াপল্টনে বিএনপিরি কেন্দ্রীয় অফিসের সামনে সংঘর্ষের সময় খালি বুক দেখিয়ে ‘এসো গুলি মারো বুকে’ বলে চিৎকার করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে তোলেন সোহাগ ভূঁইয়া।

নয়াপল্টনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেয় বিএনপির বিক্ষুব্ধ কর্মীরা। ছবি: ইন্টারনেট থেকে

এ ব্যাপারে পুলিশ বলছে, সংঘর্ষের সময় সাদা হেলমেট, কালো শার্ট ও জিন্স প্যান্ট পরা এক যুবককে পুলিশের একটি গাড়ি ভাংচুর করতে দেখা যায়। ভাংচুর শেষে শার্টের বোতাম খুলে পোজ দিচ্ছিলেন তিনি। ওই যুবকের নাম জাহিদুজ্জামান শাওন। তিনি মোহাম্মদপুর থানা ছাত্রদলের সহ-দপ্তর সম্পাদক

এছাড়াও সিসিটিভির ভিডিও ফুটেজ ও গণমাধ্যমকর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া ছবি বিশ্নেষণ করে নয়াপল্টনে হামলাকারী হিসেবে মো: মহসিন, খালেদ সাইফুল্লাহসহ আরও কয়েকজনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পুলিশের গাড়িতে অগ্নিসংযোগকারী শাহজালাল খন্দকার কবীরকেও শনাক্ত করা হয়েছে। তিনি ছাত্রদলের পল্টন থানা কমিটির আহ্বায়ক কমিটির সাবেক সদস্য। ঘটনার দিন সহিংসতায় জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান চলছে।

পুলিশের সংঘাতের ঘটনায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ নিপুণ রায় চৌধুরীসহ ৭ জনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

পুলিশের দাবি, বুধবার কেন আগে থেকেই নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এত সংখ্যক লাঠি এনে রাখা হয়েছিল তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। ঘটনার দিন পরিকল্পিতভাবে নাশকতার সূত্রপাত ঘটানো হয় বলেও পুলিশ জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মনোনয়ন ফরম বিক্রির কার্যক্রমের মধ্যেই রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গত বুধবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে পুলিশের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশের দুটি গাড়ি পোড়ানো হয়, ভাঙচুর করা হয় অনেক গাড়ি।

সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপি ও পুলিশ পরস্পরকে দায়ী করেছে।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: