হাবিবুর রহমান

কুমিল্লা প্রতিনিধি

৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা মুক্ত দিবস

০৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৬:৪০:৫২

ছবি: প্রতিনিধি

৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এদিনে কুমিল্লা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মুক্ত হয়। নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে কুমিল্লায় দিবসটি পালন করা হচ্ছে। দীর্ঘ নয় মাসের যুদ্ধ আর নির্যাতনের পরিসমাপ্তি ঘটিয়ে এদিনে কুমিল্লা মুক্তিযোদ্ধা, মিত্রবাহিনীসহ গণ মানুষের আনন্দ উল্লাসে প্রকম্পিত হয়ে উঠে। তবে কুমিল্লা মুক্ত হলেও কুমিল্লা সেনানিবাসের ভেতরে পাকিস্তানি সেনা অবস্থান করছিল।

১৬ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে সেনানিবাস হানাদারদের দখলমুক্ত হয়। এর আগের দিন রাতে ৭ ডিসেম্বর রাতে সীমান্তবর্তী এলাকার তিনদিকে মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্রবাহিনী কুমিল্লা বিমানবন্দরে পাকিস্তানি বাহিনীর ২২ বেলুচ রেজিমেন্টের ঘাঁটিতে আক্রমণ শুরু করে। পাক বাহিনীর অবস্থানের উপর মুক্তিসেনারা মর্টার ও কামান হামলা চালিয়ে শেষ রাতের দিকে তাদের আত্মসমর্পণ করাতে সম হয়।

সারারাত পাকিস্তানি বাহিনীর সাথে যুদ্ধে ২৬ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। পাকিস্তানি বাহিনীর কতিপয় সেনা বিমানবন্দরের ঘাঁটি ত্যাগ করে শেষ রাতে বরুড়ার দিকে এবং সেনানিবাসে ফিরে যায়। বিমানবন্দরের ঘাঁটিতে ধরা পড়া কিছু পাকিস্তানি সেনা আত্মসমর্পণ করে।

রাতে মিত্রবাহিনীর ১১ গুর্খা রেজিমেন্টের আর কে মজুমদারের নেতৃত্বে কুমিল্লা বিমানবন্দরের তিন দিকে আক্রমণ চালানো হয়। সীমান্তবর্তী বিবির বাজার দিয়ে লে. দিদারুল আলমের নেতৃত্বে একটি দল এবং অপর দুটি দল গোমতী নদী অতিক্রম করে ভাটপাড়া দিয়ে এবং চৌদ্দগ্রামের বাঘের চর দিয়ে এসে বিমানবন্দরের পাকিস্তানি সেনাদের ঘাঁটিতে আক্রমণ করে। মুক্তিবাহিনী ও মিত্র বাহিনীর যৌথ বাহিনীর সাথে সম্মুখযুদ্ধে পাকসেনাদের প্রধান ঘাঁটির পতনের মধ্য দিয়ে পর দিন ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা পাক সেনা মুক্ত হয়।

এদিন ভোরে মুক্তিসেনার শহরের চকবাজার টমছমব্রিজ ও গোমতী পাড়ের ভাটপাড়া দিয়ে আনন্দ উল্লাসের মধ্য দিয়ে শহরে প্রবেশ করে। তখন রাস্তায় নেমে আসে জনতার ঢল। কুমিল্লার আপামর জনগণ মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে মুক্তির উল্লাসে বরণ করে নেয়। পরে এদিন বিকেলে কুমিল্লা টাউন হল মাঠে বীর মুক্তিযোদ্ধা মিত্রবাহিনী জনতার উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়।

তৎকালীন পূর্বাঞ্চলের প্রশাসনিক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মরহুম জহুর আহমেদ চৌধুরী, দলীয় পতাকা এবং কুমিল্লার প্রথম প্রশাসক অ্যাডভোকেট আহমেদ আলী জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।

কুমিল্লা মুক্তদিবস উদযাপন উপলক্ষে ৮ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগ র‌্যালি কুমিল্লা জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া কুমিল্লার সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন চিত্রাংকন ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। দিবসটি পালন উপলক্ষে ৮দিনব্যাপী নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে বিজয় উৎসব উদযাপন পরিষদ। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহযোগিতায় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনায় চূড়ান্ত করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

আজ ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা মুক্ত দিবসে সকাল ৮টায় কুমিল্লা টাউন হল ময়দানে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে ৮দিনব্যাপী কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে। এছাড়াও দিবসটি উপলে বীর মুক্তিযোদ্ধা সফিউল আহমেদ বাবুলের নেতৃত্বাধীন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: