প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

সম্পাদনা: আমিনুল ইসলাম রোমান

ডেস্ক এডিটর

শামীম ওসমান

‘জামায়াতের প্রেসক্রিপশনে পুলিশ প্রশাসনে রদবদল হচ্ছে’

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ ২০:৫৭:১০

ছবি: সংগৃহীত

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জামায়াতের প্রেসক্রিপশনে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ প্রশাসনে রদবদল করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ ডিসেম্বর) বিকেলে জালকুড়ি দক্ষিণপাড়া পাঙ্খা শাহ্’র মাজার এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণাকালে উঠান বৈঠকে এ অভিযোগ করেন তিনি।

শামীম ওসমান বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকায় ঐক্যফ্রন্টের যে প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে নারায়ণগঞ্জের নব্বই শতাংশ মানুষ তাকে চেনে না। গত চার পাঁচদিন যাবত বিভিন্ন এলাকা থেকে বিলাসবহুল গাড়ি নিয়ে অচেনা লোকজন নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ঘাঁটি করছে। বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ায় তাদের উদ্দেশ্য সঠিক নয়।

নারায়ণগঞ্জে বড় ধরনের নাশকতামূলক ঘটনার আশংকা প্রকাশ করে শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জ রাজনৈতিক এলাকা। এই এলাকার প্রতি খেয়াল রাখতে আমি নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করব। যদি আবারো জনগণের উপর বোমা হামলা করা হয় তাহলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এবং এর দায় দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনকেই বহন করতে হবে।

তিনি বলেন, গত চার পাঁচদিন ধরে যেভাবে বাইরে থেকে লোক আনা হচ্ছে, আমাদের কাছে খবর আছে, খবর পাচ্ছি। এই খবর রাখার কথা প্রশাসনের। উনার সে খেয়াটা কম রাখছেন। এবং এই জঙ্গিবাদের যে অর্থের উৎস সে উৎস চাচ্ছে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ প্রশাসনের যে সিস্টেম আছে সেটি ভেঙে দেওয়ার জন্য চেষ্টা করছে। কারণ, তাদের টাকার উৎস অনেক জায়গায়।

তিনি আরো বলেন, আজ পত্রিকায় দেখলাম বিএনপির মোশারফ হোসেন পাকিস্তানি আইএসর সাথে কথা বলছে সে রেকর্ড ফাঁস করেছে। এ জন্য আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। আজ সব মানুষের কাছে পরিস্কার হয়ে গেছে। আমার মনে হচ্ছে, নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য এখানে প্রার্থী দেওয়া হয় নাই। আমার মনে হয়, এলাকার নাইটি নাইন পার্সেন্ট মানুষ তকে চেনেও না। সে নিয়ে আমার সমস্যা নাই। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে এই এলাকাটা বেছে নেওয়া হয়েছে অন্য কোনো কারনে। আঘাত করার জন্য।

শামীম ওসমান বলেন, আমরা বারবার প্রশাসনকে জানাচ্ছি, আমরা নারায়ণগঞ্জ ভাষা আন্দোলন সৃষ্টি করেছি, ৬৯ সৃষ্টি করেছি। আওয়ামী লীগ সৃষ্টি করেছি। গোলাম আযমকে প্রথম নিষিদ্ধ করেছি। আমরা শেখ হাসিনার কর্মী। তাই নির্বাচন কমিশনকে বলছি, এদের প্রতি খেয়াল রাখুন। সাধারণ মানুষকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে। এমন প্রতিরোধ করা হবে সারা দেশের মানুষ তাকিয়ে তাকিয়ে দেখবো। এবার আর কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

তিনি হুঁশিয়ার করে বলেন, ‘যদি আবারো জনগণের ওপর বোমা হামলা করা হয় তাহলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এবং এর দায় দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনকেই বহন করতে হবে।’

এর আগে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান জালকুঁড়ি এলাকায় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদে নির্বাচনী সভায় বক্তব্য রাখেন। সেখান থেকে এলাকায় কয়েকটি ওয়ার্ডে গণসংযোগ ও উঠান বৈঠকে অংশ নেন। শত শত নারী পুরুষ তাকে স্বাগত জানান।

এসময় শামীম ওসমান বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের আগে গত ২০ বছরে জনপ্রতিনিধিরা যে উন্নয়ন করেছিলেন, আমি এর ৫০ গুণ বেশি উন্নয়ন করেছি। যার কারণে আমি কারো কাছে ভোট চাইবো না।’

তিনি দাবি করেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন হলে নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থীরা ৭৫ শতাংশ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হবেন।’

শামীম ওসমানের এ গণসংযোগকালে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: